‘আনসারকে তদন্ত ক্ষমতা প্রদানের দাবি অযৌক্তিক, অনাকাঙ্ক্ষিত’

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
আনসার বাহিনীকে পুলিশের মতো ক্ষমতা ও তদন্ত করার দাবির বিষয়টি অযৌক্তিক ও অনাকাঙ্ক্ষিত উল্লেখ করে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার্স কল্যাণ সমিতি। গতকাল সমিতির সভাপতি ও পুলিশের সাবেক আইজি এম শহীদুল ইসলাম চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, গত ১৪ই সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার্স কল্যাণ সমিতির মাসিক সভায় আনসার সদর দপ্তরের আলোচ্য প্রস্তাবটি (তদন্ত ক্ষমতা প্রদানের দাবি) বিশদভাবে আলোচনা করা হয়েছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ১৫২(১) অনুচ্ছেদ মতে বাংলাদেশ পুলিশ দেশের অন্যতম শৃঙ্খল বাহিনী। শৃঙ্খলা রক্ষার সঙ্গে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত হলেও ফৌজদারি অপরাধের তদন্ত একটি বিশেষায়িত পুলিশি কর্মকাণ্ড। তদন্ত হল বিচারিক প্রক্রিয়ার অপরিহার্য পূর্বপ্রস্তুতি। কোনো অপরাধের বিচারিক কর্ম শুরুর আগে তদন্ত সম্পাদন আদালতের ওপর বাধ্যতামূলক না হলেও ব্যতিক্রম ক্ষেত্র ছাড়া আদালত সরাসরি ফৌজদারি অভিযোগ আমলে নেন না।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি পত্রপত্রিকায় এই মর্মে খবর প্রকাশিত হয়েছে, আনসার বাহিনীর মতো একটি সহায়ক বাহিনীও ফৌজদারি মামলা তদন্তের ক্ষমতা চায়। এ লক্ষ্যে আনসার সদর দপ্তর থেকে আনসার ব্যাটালিয়ান আই-১৯৯৫ এর সংশোধনের একটি খসড়া স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগে পাঠানো হয়েছে, যেখানে আনসার বাহিনীকে তাদের ঐতিহাসিক সহায়ক ভূমিকা থেকে সরিয়ে স্বাধীনভাবে পুলিশি কর্মকাণ্ড তথা তদন্তের দায়িত্ব প্রদানের প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রচার মাধ্যমে এ ধরনের সংবাদ দেখে সচেতন নাগরিক ও পুলিশের অগণিত প্রাক্তন সদস্য হিসেবে আমরা হতবাক হয়েছি। কেবল পুলিশ বাহিনীতে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালনের ফলে আমাদের কষ্টার্জিত অভিজ্ঞতাই নয় বরং সচেতন নাগরিক হিসেবে আমাদের প্রত্যাশা হলো, তদন্তের মতো একটি বিশেষায়িত কাজ কেবল বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত ও অভিজ্ঞ পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের দ্বারাই সুষ্ঠুভাবে করা সম্ভব। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, তদন্তকে আইনশৃঙ্খলা থেকে পৃথক করার জন্য সরকার ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)-এর পাশাপাশি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গঠন করেছে। থানাগুলোতে কেবল তদন্তকার্য পরিচালনা ও ব্যবস্থপনার জন্য পৃথক ইন্সপেক্টরের পদ সৃজন করা হয়েছে। ফলে বলা যায়, অপরাধ প্রতিরোধ ও ফৌজদারি মামলা তদন্তের ক্ষেত্রে পুলিশের সক্ষমতা ও দক্ষতা যেকোনো সময়ের চেয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে। আমাদের আশঙ্কা নতুন এই প্রস্তাব বাস্তবায়ন হলে তারা মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়বে, যার ফলে জঙ্গি দমনসহ আইনশৃঙ্খলার ওপর কিছুটা হলেও বিরূপ প্রভাব পড়বে। আনসার বাহিনী ঐতিহাসিকভাবে পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর সহায়তায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, জাতীয় নির্বাচনসহ অন্যান্য গুরুত্বর্পূণ সময়ে সুচারুরূপে দায়িত্ব পালন করে আসছে। এর বাইরেও তাদের সমাজ উন্নয়নমূলক গুরুত্বপূর্ণ কাজে নিয়োজিত থাকতে হয়।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভারতীয় সেনাবাহিনীর সঙ্গে যৌথভাবে যুদ্ধ করেছিল মুক্তিযোদ্ধারা

বিছানায় তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মেসুতের বড়ছেলের মৃতদেহ

গোয়া: যৌন ব্যবসায়ও আধার কার্ড

ট্রাম্প শিবিরের হাজার হাজার ইমেইল মুয়েলারের হাতে

পেট্রলবোমায় দুজন দগ্ধ

যেভাবে উগ্রপন্থায় দীক্ষিত হন আকায়েদ উল্লাহ

ঝন্টুর পেশা রাজনীতি

রিয়াল মাদ্রিদই চ্যাম্পিয়ন

‘জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা অবশ্যই বাতিল করতে হবে’

উড়ে গেল টটেনহ্যমও

ছায়েদুল হকের জানাজা সম্পন্ন

ভারতে 'ছয় মাসের মধ্যে' ধর্ষকদের ফাঁসির দাবি করলেন নারী অধিকারকর্মী

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী শ্রমিক পাচার চক্র, কুয়ালালামপুর বিমানবন্দর থেকে ৬০০ কর্মকর্তা বদলি

জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে নোটিশ জারিতে ইন্টারপোলের অস্বীকৃতি

ব্রাজিল ফুটবলের প্রধান ৯০ দিন নিষিদ্ধ

ঝিকরগাছায় ছাত্রলীগ কর্মী খুন, সড়ক অবরোধ