রামগঞ্জে বখাটে বেত্রাঘাত, মাথা ন্যাড়া

অনলাইন

রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ৩:৫৫
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৬নং লামচর ইউনিয়নের দাসপাড়া গ্রামে মাদ্রাসায় পড়–য়া শিশু ছাত্রীকে শ্লীতাহানী ও টানা-হেচড়ার দায়ে গ্রাম্য মাতব্বররা মিজান নামের এক বখাটেকে ৭৫টি বেত্রাঘাত, ৮টি জুতা পেটা ও মাথা ন্যাড়া করে দিয়েছে। একই সঙ্গে ৩০০ টাকা মুল্যের সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে গ্রাম থেকে বের করে দিয়েছে। ঘটনাটি ঘটে রোববার গভীর রাতে দাসপাড়া গ্রামের কাঙ্গার বাড়িতে। এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার দাসপাড়া কাঙ্গার বাড়ির বেলাল হোসেনের মেয়ে ও মাঝিরগাঁও মনি কানন নুরানী মাদ্রাসার দ্বিতীয় জামায়াতের ছাত্রী মুশফিকা আক্তার রোববার দুপুরে মাদ্রাসার থেকে বাড়ি ফেরার পথে কাতালিয়া দিঘির পাড়ের রাস্তায় পৌছা মাত্রই বখাটে মিজান টানা-হেচড়া করে পরিত্যাক্ত বাগানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় গ্রামের জনৈক শরিয়ত উল্যাহ বিষয়টি দেখে চিৎকার দিলে গ্রামবাসী ছুটে এসে ছাত্রীকে উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যদের জিম্মায় দেয়। ঘটনা ধামাচাপা দিতে তাহেরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাফায়েত উল্যাহর নেতৃত্বে গ্রামের মাতব্বর চকিদার বাড়ির খোকন, মোরশেদ আলম, বখাটের ভাই শাহজাহান, শাহ আলমসহ কয়েকজন ওইদিন গভীর রাতে শালিসী বৈঠকে বসে। বৈঠকে মাতব্বররা বখাটে মিজানকে ৭৫টি বেত্রাঘাত, ৮টি জুতা পেটা ও মাথা ন্যাড়া করে দেয়।
ছাত্রীর পিতা বেলাল হোসেন বলেন, কুমিল্লা কর্মস্থল থাকাবস্থায় খবর পেয়ে বাড়ি আসি। কোন কিছু বুঝে উঠার পুর্বেই বখাটে মিজানকে মারধর করে একটি সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে ১০ বছরের জন্য গ্রাম থেকে বের করে দেয়। মাতব্বর খোরশেদ ও খোকনকে বার বার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। শালিসদার শাহ আলম বলেন, শিশু ছাত্রী ও বখাটে নিকট আত্মীয় হওয়ায় ঘরোয়া পরিবেশে সমাধান করা হয়েছে। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার শামসুল ইসলাম বলেন, ঘটনার ২দিন পর আমি লোকজনের মুখে শুনেছি। দুই পরিবারের কেউ আমাকে বলেনি।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন