আল্লামা শফি আবারো হাসপাতালে

দেশ বিদেশ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:১৪
হেফাজতে ইসলামের আমীর ও হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফিকে আবারো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার সকাল ৭টার দিকে চট্টগ্রাম সিএসসিআর হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। প্রায় শতবর্ষী এই হেফাজত আমীর আহমদ শফি দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, কিডনি ও উচ্চ রক্তচাপসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছেন। হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক ও শফিপুত্র আনাস মাদানি জানান, হঠাৎ শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটায় নগরীর সিএসসিআর হাসপাতালে আবারো ভর্তি করা হয় হেফাজত আমীরকে। তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে। শারীরিক অবস্থাও মোটামুটি স্বাভাবিক।
তবে শারীরিক দুর্বলতা কাটাতে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানান আনাস মাদানি। আল্লামা শফির রোগমুক্তি কামনায় দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।
এর আগে বেশ কয়েকবার নগরীর সিএসসিআর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয় আল্লামা আহমদ শফিকে। পরে রাজধানীর আসগর আলী হাসপাতালে এক মাসেরও বেশি সময় চিকিৎসা নেন তিনি। শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেফাজত আমীর গত ২২শে জুলাই ভারতের দিল্লি যান।
সেখানে এ্যাপোলো হাসপাতালে তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গত ২৯শে জুলাই ছাড়পত্র দিলেও সাতদিন তিনি ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদরাসায় অবস্থান করেন। পরে ৫ই আগস্ট দেশে ফিরেন বলে জানান সংগঠনের দায়িত্বশীল নেতারা।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিএনপিকে ভোট দিয়ে অশান্তি ফিরিয়ে আনবে না জনগণ: প্রধানমন্ত্রী

অভিযোগ মিথ্যা এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ করিনি

আরো ব্লগার হত্যার হিটলিস্ট

আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে মামলা, অতঃপর...

ফের বেড়েছে বিদ্যুতের দাম

চাহিদা নেই, তবুও রাজউকের নতুন ফ্ল্যাট প্রকল্প

‘আনিসুল হককে নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা ভিত্তিহীন’

মৌলভীবাজারে গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা ভিডিএন চেয়ারম্যান ও এমডি

সিলেটে জামায়াতের ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী’, জল্পনা

সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

রোহিঙ্গা জাতি নিধনের তুমুল সমালোচনা যুক্তরাষ্ট্রের

‘আমি হতবাক’

ডাক্তাররা বেশ প্রভাবশালী ও তদবিরে পাকা: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী

যশোর জেলা স্পেশাল জজের বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার অভিযোগ

রোহিঙ্গা শব্দ ব্যবহার না করতে বলা হলো পোপকে

অসুস্থ রাজনীতি বাংলাদেশকে গ্রাস করছে: ড. কামাল হোসেন