ডু প্লেসির কাছে ‘সিনেমা’ মনে হচ্ছে

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বুধবার
পাকিস্তানে বিশ্ব একাদশের নিরাপত্তাব্যবস্থা সিনেমার দৃশ্যের মতো মনে হচ্ছে ফ্যাফ ডু প্লেসির কাছে। দীর্ঘদিন পর পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরেছে। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের বহনকারী বাসের ওপর সন্ত্রাসী হামলার পর ২০১৫ সালে শুধু জিম্বাবুয়ে সফর করেছে। এছাড়া আর কোনো দল পাকিস্তানে যেতে সাহস করেনি। তবে পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর ব্যাপারে এবার উদ্যোগী হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। তারা দেশটিতে বিশ্ব একাদশ পাঠিয়েছে। যার অধিনায়ক দক্ষিণ আফ্রিকার ফ্যাফ ডু প্লেসি। পাকিস্তানের বিপক্ষে তারা তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে। যার প্রথমটি হয়েছে গতকাল লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। আগের দিন দুবাই থেকে বিশ্ব একাদশের খেলোয়াড়রা পাকিস্তানের মাটিতে পা রাখেন। বিমানবন্দর থেকে হোটেল পর্যন্ত পুরো রাস্তা ও আশপাশের নিরাপত্তাব্যবস্থা দেখে অবাক হচ্ছেন বিশ্ব একাদশের অধিনায়ক প্যাফ ডু প্লেসি। বলেন, নিরাপত্তার কঠিন বলয় দেখে মনে হচ্ছে, আমরা সিনেমার জগতে রয়েছি। নিরাপত্তাব্যবস্থা দেখেই বোঝা যায়, সিরিজটি পাকিস্তানের জন্য মুক্তির বার্তা। সম্ভবত এ কারণেই তারা সিরিজটির নাম দিয়েছে ইন্ডিপেন্ডেন্স কাপ।’
তিনি বলেন, যখন পাকিস্তানে খেলার বিষয়টি সামনে আসে, তখন অনেক কিছুই ভাবতে হয়। কিন্তু যখন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা লোকদের সঙ্গে কথা বলি তখন সব পরিষ্কার হয় যে তাদের পরিকল্পনাটা চমৎকার। একজন খেলোয়াড় হিসেবে আমাদের চাওয়া থাকে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ। তারা তা নিশ্চিত করতে পেরেছে। তারা খুব আত্মবিশ্বাসী যে সব খুব ঠিকঠাক মতো হবে। খেলার আগে ২৪ ঘণ্টা আমরা বেশ অস্থিরতায় ছিলাম। তিনি বলেন, আমার হয়তো দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে পাকিস্তানে খেলাই হতো না। ততদিনে আমি হয়তো অবসরে চলে যাবো। কিন্তু এই সফর যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আমি বুঝি। আর কোচ অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার যখন ফোন করে বলেন, তিনি আমাকে ক্যাপ্টেন হিসেবে চান তখন বিষয়টি আরো বড় হয়ে দাঁড়ায়। ডু প্লেসি বলেন, আমি মনে করি এটা আমার জন্য অনেক বড় সম্মানের যে পাকিস্তানে ক্রিকেট ফেরানোর পেছনে আমার একটা ভূমিকা থাকছে।
অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের ভাই গ্রান্ট ফ্লাওয়ার পাকিস্তানের ব্যাটিং কোচ হিসেবে দাায়িত্ব পালন করছেন ২০১৪ সাল থেকে। বিশ্ব একাদশের কোচের দায়িত্ব পাওয়ায় গর্বিত অ্যান্ডিও। তিনি বলেন, আমরা এখানে এসেছি পাকিস্তানের স্বাধীনতার ৭০ বছরপূতি উদযাপন করতে। এটা পাকিস্তানে ক্রিকেট পুনর্জীবনের জন্য বড় ভূমিকা রাখবে। পাকিস্তানি জনগণের সামনে ক্রিকেট খেলাটা বেশ দারুণ ব্যাপার হবে। অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার বলেন, আমরা বিশ্ব একাদশের পক্ষ থেকে তাদের প্রতি সহানুভূতি ও শোক জানাতে চাই, যারা পাকিস্তানে সন্ত্রাসবাদী হামলায় বিভিন্ন সময়ে প্রাণ দিয়েছেন। আমরা সবাই জানি, এই সন্ত্রাসবাদের কারণেই আজ পাকিস্তান থেকে ক্রিকেট খেলুড়ে দেশগুলো দূরে সরে গেছে।
তিনি বলেন, পাকিস্তানের সঙ্গে আমার বন্ধন অনেক পুরনো। জিম্বাবুয়ে দলের হয়ে আমি এখানে ১৯৯৩, ’৯৬ ও ’৯৮ সালে সফর করেছি। ১৯৯৮তে আমরা এখানেই প্রথম জয়ের কৃিতত্ব অর্জন করি।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের ব্যাপক আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন: ইউএনএইচআরসি

ভিত্তিহীন খবরে তোলপাড়

মার্কেল?

ফের সীমান্তে রোহিঙ্গা স্রোত

সন্তানদের সামনেই শামিলাকে ধর্ষণ করে বার্মিজ সেনারা

মন্ত্রী-এমপিরা আমাদের সঙ্গে আছেন

মনোনয়ন দৌড়ে ২৩ নেতা

ট্রাকচালক থেকে সপরিবারে ইয়াবা ব্যবসায়ী

খুচরা বাজারেও কমেছে চালের দাম

বাড়লো আটার দাম

মালিতে ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহত

উল্টো পথে যাওয়া প্রতিমন্ত্রী, সচিবের গাড়িসহ ৫০ যানবাহনকে জরিমানা

উল্টো পথে গাড়ি জরিমানা গুনলেন প্রতিমন্ত্রী ও সচিবরা

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বিএনপির তিন প্রস্তাব

মালিতে বিস্ফোরণে ৩ বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহত

নারায়ণগঞ্জে ঘুষ গ্রহণকালে হাতেনাতে গ্রেপ্তার ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার