স্বস্তি ও শান্তির জন্য আসলে কি দরকার...

প্রবাসীদের কথা

কাজী সুলতানা শিমি | ২২ আগস্ট ২০১৭, মঙ্গলবার
সিডনির রকডেলে একজন বাংলাদেশী ছাত্রের লাশ পাওয়া গেলো ঝুলন্ত অবস্থায় গত কিছুদিন আগে। তীব্র যন্ত্রণায় মনটা ছেয়ে গেলো। একটা তরুণ তাজা প্রাণ। ভবিষ্যতে কতো কিছুই না করতে পারতো। টগবগে তারুণ্য।  যে কিনা মুছে দিতে পারতো অন্যদের নিঃসঙ্গতা।আজ কিনা সে-ই নিঃসঙ্গ অবস্থায় নিজেকে শেষ করে দিলো। কি ছিল তার মনে! কারো সাথে কি ভাগ করতে পারলোনা।
মনের কথা কিংবা কষ্টগুলো! আসলে খুব গভীর ভাবে চিন্তা করলে মনে হয় আমরা সবাই এক অর্থে নিঃসঙ্গই বৈকি! প্রযুক্তির সহজলভ্যতায় যদিও সবকিছু আজ হাতের মুঠোয়। ইচ্ছে করলেই মনের ভাব প্রকাশ করে ফেলতে পারি অনায়াসে। কিন্তু আসলে ক’জন আমরা মন খুলে কথা বলতে পারি! কিংবা কথা বলছি! কথা বলতে গেলেই রাজ্যের শঙ্কা আমাদের মনে দুরুদুরু করতে থাকে। না জানি কি বলতে কি বলে ফেলি। পরে এনিয়ে আবার কি না জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়। এসব নানা ভাবনায় আমরা মুলতঃ কথা বলার চেয়ে পরে এর প্রতিক্রিয়া কি হবে এনিয়ে অস্থির হয়ে পরি। এভাবেই শুরু হয় মানসিক অস্থিরতা পরে বিষণ্ণতা এরপর এই আত্নঘাতী পরিণতি।
পশিচমা দেশে মানসিক বিষণ্ণতা দুর করতে কাউন্সিলিং এর ব্যবস্থা রয়েছে। এরা মুলতঃ রোগীর সাথে কথা বলেই বেশীর ভাগ সময় কাটায়। তাদের মতে মন,প্রান খুলে কথা বলতে পারলেই রোগী অনেকটা সুস্থ হয়ে যায়। আমাদের ছোটবেলায় চারপাশে ভাই, বোন, চাচা, মামা, খালা, আত্নিয়-স্বজন ছাড়াও ছিল প্রতিবেশী ও অনেক বন্ধুবান্ধব। যাদের সাথে প্রাণ খুলে কথা বলেছি। ঝগড়া করেছি। অভিমান করেছি। আবার সবভুলে একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছি। এতে রাগ ও দুঃখবোধ বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেনি। কেননা এসব ছিল দৈনন্দিন জীবনেরই অংশ। আজ চারপাশে এতকিছু থাকার পরও সবাই যেন নিঃস্ব। মানুষ বেশীরভাগ সময় কাটায় যন্ত্রে, ফেসবুকে কিংবা কুকুরের সাথে। সময় কাটানোর জন্য প্রযুক্তি একটা উপায় মাত্র। আসলে তা মানসিক স্বস্তি ও শান্তি দিচ্ছে কি! আর কুকুর প্রতিবাদ করতে জানেনা কিংবা নিজের মত প্রকাশ করতে পারেনা। তা বলেই কি তাকে মানুষের চেয়ে বেশী আপন মনে করা! মানুষ হয়ে মানুষকে আজ আমরা নিরাপদ ও বিশ্বস্ত মনে করছিনা। কেন!? প্রযুক্তি ও কুকুরকে বেশী নিরাপদ মনে করার কারণ আমরা দ্বিধাহীন ও শঙ্কা মুক্ত ভাবে কথা বলতে পারছিনা। এরমুলে কি এক ধরণের অহং বোধ নাকি কথা বিকৃত হওয়ার ভয়! আমরা সবাই যেহেতু এর ভিক্টিম হয়ে যাচ্ছি তাহলে কেন এর প্রতিকারের কথা ভাবছিনা!
আমার মনে আছে আজ থেকে অনেক বছর আগে যখন প্রথম দেশ ছেড়ে আসি তখন একজন দেশের মানুষ দেখলেই পরস্পর নিজ থেকে এগিয়ে গিয়ে পরিচিত হতে চেয়েছে। আত্নীয় ও পরিজনের মতো আপন করে নিয়েছে। অথচ আজ নিজ দেশের হলেও পরদেশে এসে একে অপরের সাথে কথা বলতে শঙ্কা বোধ করছে। কিংবা যেটুকু সৌজন্যতা না করলেই নয় শুধু সেটুকুই করছে। কেন এই দীনতা! শুধু একটু কথা বলেই হয়তো রকডেলের সেই তরুণ প্রাণের ছেলেটাকে নতুন করে উদ্দীপনা দেয়া যেতো। যা করছে এদেশের কাউন্সিলিং সার্ভিস। মৃত্যুর পর সমবেদনায় তার কিছুই যায় আসেনা। কিন্তু আমরা যারা এখনো বেঁচে আছি এথেকে একটু হলেও শিক্ষা নিতে পারি যে আমাদের আসলে সঙ্গ দরকার। নিঃস্বার্থ সঙ্গ। প্রযুক্তিই সবকিছু নয়।
কথাবলা, হাসা ও প্রানখুলে আড্ডা দেয়া শরীর ও মন সুস্থ রাখে। নিঃস্বার্থ ভালোবাসার আজ খুব অভাব। শুধু প্রানখুলে কথা বলাই ভালোবাসার প্রকাশ। অনুরাগ, অভিমান, রাগ-বিরাগ ও একধরণের ভালোবাসা। যা হতাশা, বিষণ্ণতা দুর করে। যার জন্য স্বার্থ ও অর্থ কিছুই প্রয়োজন হয়না। শুধু কথা দিয়েই একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে অপার্থিব শান্তি দিতে পারে। হোক সেটা পরিণত বয়েস, তরুণ কিংবা শিশু। আমরা মানুষ। সৃষ্টির সেরা জীব। আমরাই পারি একে অপরকে শান্তি দিয়ে, ভালোবাসা দিয়ে ভুবন জয়ের প্রেরণা দিতে। লৌকিক সীমাবব্ধতায় থেকেও সীমা লঙ্ঘন না করে সব বয়সে শুধু কথাই হতে পারে মানসিক শান্তির এক অফুরন্ত অনুপ্রেরণা। মানসিক শান্তিতে থাকা একজন মানুষ পৃথিবীর জন্য রেখে যেতে পারে অভুতপুর্ব অবদান। অপার সম্ভাবনার সেই মানুষের অনুপ্রেরণায় শুধু প্রয়োজন স্বস্তি ও শান্তির দেয়ার জন্য একজন মানুষ। সেটা কি খুব অসম্ভব চাওয়া...    

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিএনপিকে ভোট দিয়ে অশান্তি ফিরিয়ে আনবে না জনগণ: প্রধানমন্ত্রী

অভিযোগ মিথ্যা এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ করিনি

আরো ব্লগার হত্যার হিটলিস্ট

আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে মামলা, অতঃপর...

ফের বেড়েছে বিদ্যুতের দাম

চাহিদা নেই, তবুও রাজউকের নতুন ফ্ল্যাট প্রকল্প

‘আনিসুল হককে নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা ভিত্তিহীন’

মৌলভীবাজারে গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা ভিডিএন চেয়ারম্যান ও এমডি

সিলেটে জামায়াতের ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী’, জল্পনা

সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

রোহিঙ্গা জাতি নিধনের তুমুল সমালোচনা যুক্তরাষ্ট্রের

‘আমি হতবাক’

ডাক্তাররা বেশ প্রভাবশালী ও তদবিরে পাকা: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী

যশোর জেলা স্পেশাল জজের বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার অভিযোগ

রোহিঙ্গা শব্দ ব্যবহার না করতে বলা হলো পোপকে

অসুস্থ রাজনীতি বাংলাদেশকে গ্রাস করছে: ড. কামাল হোসেন