তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়

ফেসবুক ডায়েরি

আহমেদ তানভীর | ১৫ জুলাই ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:১৫
আমাদের দেশের রাজনৈতিক সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে এ দেশের জন্মলগ্ন থেকে কখনোই শিক্ষা বা গবেষণার পীঠস্থান হিসেবে দেখেনি। তারা এটিকে দেখেছে রাজনৈতিক পেশিশক্তি প্রদর্শনের অন্যতম জায়গা হিসেবে। তাদের কাছে হিসাব অত্যন্ত সোজা। যেকোনো আন্দোলন, রাজনৈতিক বা অরাজনৈতিক হোক, সেটি গড়ে ওঠে এবং বেগবান হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কেন্দ্র করে। তাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ঠান্ডা রাখতে পারলে অনেকখানি নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো যায়। এই রাজনৈতিক পেশিশক্তির আঁধারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে প্রথমে যেটি দরকার, সেটি হলো ক্ষমতায় থাকা রাজনৈতিক শক্তির একান্ত অনুগত একজন ব্যক্তি।
বেশির ভাগ সময়ে তাঁকে আনুগত্যের পরীক্ষা দিতে হয় দলীয় শিক্ষকদের নেতৃত্ব দিয়ে এবং তাঁর নেতা হওয়ার যে ক্ষমতা আছে, সেটির প্রমাণ দিয়ে। সে ক্ষেত্রে তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

MD. Habibur Rahman

২০১৭-০৭-১৫ ০২:৫৬:২৬

Wow !

আপনার মতামত দিন

৭ই মার্চ কেন জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস নয়

প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ ও নিয়োগ প্রসঙ্গে

তিনি আছেন থাকবেন

বাতিল হওয়া ৪ লাখ বই উপজেলায়

কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে রাহুল গান্ধীর নাম ঘোষণা

আওয়ামী লীগ-বিএনপি সমানে সমান

সশস্ত্র বাহিনী দিবস আজ

বাংলাদেশে প্রথম এলপিজি আমদানির জাহাজ কিনলো বেক্সিমকো পেট্রোলিয়াম

সৌদি আরবে আটক ২৭৩ রোহিঙ্গা নিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ

বাংলাদেশের বন্ধু হাওয়ার্ড বি শেফার আর নেই

আওয়ামী লীগ প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন চায়

এই সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়

উল্টো পথে এমপি’র গাড়ি আটকের ছবি ভাইরাল

সশস্ত্র বাহিনী জাতির এক গর্বিত প্রতিষ্ঠান: খালেদা জিয়া

কেরানীগঞ্জে বিএনপি অফিসে পুলিশের তালা

সিলেটের টার্গেট ১৭০