‘মানবিক অধিকার প্রতিমুহূর্তে লঙ্ঘিত হচ্ছে’

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন ৩০ মে ২০২০, শনিবার, ১:২১

সরকার সবকিছু খুলে দিয়ে সমগ্র জাতিকে বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শনিবার বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে তার মাজারে জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের সামনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকের এই দিনে স্বাধীনতার শত্রু, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চক্র শহীদ জিয়াউর রহমানকে হত্যা করে। দেশের এই বিশেষ সংকটময় মুহূর্তে আমাদের নেতার কথা বারবার মনে হয়। আজকে এই ক্ষণজন্মা নেতা যদি বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিতে পারতেন তাহলে এদেশের মানুষকে আর এতো কষ্ট পেতে হতো না। আজকে বাংলাদেশের মানুষের গণতন্ত্র নেই, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করা হয়েছে, মানবিক অধিকার প্রতিমুহূর্তে লঙ্ঘিত হচ্ছে, দেশে এক দলীয় শাসন কায়েম করা হয়েছে। এই সরকারের জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই এবং জনগণের কল্যাণে তারা কখনো কোন কাজ করে না। সরকারেরর একটা ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে সমগ্র জাতি একটা বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আগামীকাল থেকে কোন সাধারণ ছুটি থাকবে না, গণপরিবহন খুলে দেয়া হবে। এ বিষয়গুলোতে তারা প্রথম থেকেই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
সরকারের সিদ্ধান্ত গুলো শুধু অপরিপক্ক নয়, এটা অদূরদৃষ্টি সম্পন্ন এবং প্রজ্ঞাবিহীন। যার ফলে আজকে সমগ্র দেশের মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। যে পরিমাণ পরীক্ষা হচ্ছে এতে দেখা গেছে প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। মৃত্যুর পরিমাণ বাড়ছে। অথচ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমনকি তাদের যে নির্বাচিত টেকনিক্যাল কমিটি আছে তারা পরামর্শ দিয়েছেন, একসঙ্গে সব কিছু খোলা উচিত হবে না। সরকার কারো কথা না শুনে সবকিছু খুলে দিয়েছে। ফলে আমরা আরও বড় একটা হুমকির মুখে গোটা জাতি পড়ে গিয়েছি।শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে তার মাজার জিয়ারত করে আজ শপথ করেছি আমরা এই দুর্দিনে জনগণের পাশে দাঁড়াবো, আমাদের পক্ষে যতটুকু সম্ভব ইতিমধ্যে দাঁড়িয়েছে এবং ভবিষ্যতে আরও জনগণের পাশে দাঁড়াবে। একই সঙ্গে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবো এটা হচ্ছে আমাদের আজকের দিনের শপথ।

সরকার গণপরিবহণ চালু করে দিয়েছে এবং এর সঙ্গে ভাড়া বাড়ানোর কথা আসছে। এটা জনগণের জন্য একটা বাড়তি বোঝা হবে কিনা জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার বলে দিয়েছে কোনরকম ভাড়া বাড়াবে না এবং গাড়ি অর্ধেক ফাঁকা রেখে চলাচল করবে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে সবকিছুই কোন চিন্তা ছাড়াই করা হচ্ছে। এমনকি দায়িত্বজ্ঞানহীন ভাবে সিদ্ধান্তগুলো নেয়া হচ্ছে। আমরা মনে করি এটা একেবারেই ভুল সিদ্ধান্ত।

লকডাউন খুলে দেয়ার পরও জনগণের প্রতি বিএনপির কি আহ্বান থাকবে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, সব সময় বলে আসছি আপনারা নিরাপদ, থাকুন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন এবং ঘরে থাকুন।

সরকারের প্রতি আপনাদের কোনো পরামর্শ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকারকে আমরা বিগত দিনে অনেক পরামর্শ দিয়েছি কিন্তু কোন প্রতিকার পায়নি, উল্টো তিরস্কার পেয়েছি। কিন্তু এই মহামারিতে আমারা যে প্যাকেজ প্রস্তাব দিয়েছিলাম এটাই ছিল সবচেয়ে যুক্তিসঙ্গত। কিন্তু তারা সেটা আমলে নেয়নি।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

FARUKI

২০২০-০৫-৩০ ১৮:৩৯:১৮

I think that Bangladesh Goverment took right decesion. BNP are looking political issue and getting a big zero.

Ziauddin

২০২০-০৫-৩০ ০১:০৬:৫৬

I think Govt. took appropriate decision. Otherwise economy will be ruined.

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

গণপূর্ত সচিবের ফোন ধরেননি তাই-

রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী হেলালীকে শোকজ

৩ জুলাই ২০২০



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত