করোনা প্রতিরোধে সেগুনবাগিচায় সতর্কতা একটি কক্ষ সিলগালা

মিজানুর রহমান

শেষের পাতা ২৩ মার্চ ২০২০, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০৫

করোনা প্রতিরোধে সেগুনবাগিচায় সতর্কতামূলক বিভিন্ন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রবেশদ্বার থেকে শুরু করে সভাকক্ষ এমনকি কর্মকর্তাদের রুমে ঢুকতেও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। দর্শনার্থী প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে আরও ৪ দিন আগে। অতি সম্প্রতি একজন কর্মকর্তার সর্দি কাশি নিয়ে অফিস করায় এক প্রকার আতঙ্ক তৈরি হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ওই কর্মকর্তাকে জরুরি ভিত্তিতে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে এবং তার কক্ষটি সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় নতুন করে পুরো বিষয়টি নিয়ে ভাবা হচ্ছে। বিশেষতঃ করোনা আক্রান্ত দেশগুলোর কোন নাগরিক যাতে জরুরি প্রয়োজনেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে না আসে তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। অভ্যন্তরীণভাবেও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চলাচলে কিছু বিধি নিষেধ আরোপের সিদ্ধান্ত হয়েছে।
বলা হয়েছে- দেশ-বিদেশে সংযোগসহ নানা কারণে পররাষ্ট্র সার্ভিসকে অ্যাসেনশিয়েল সার্ভিস হিসাবে বিবেচনা করা হয়। ফলে অন্যান্য অফিসে যা-ই হোক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম বন্ধ বা সীমিত করা সম্ভব নয়। ফলে যতটা সম্ভব সতর্কতার সঙ্গে অফিস কার্যক্রম চালাতে হবে। দর্শনার্থী প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করা হলেও এটি পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব নয় বাস্তব কারণে- এমনটা জানিয়ে দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা গতকাল মানবজমিনের সঙ্গে আলাপে বলেন, আমাদের নানা সীমাবদ্ধতা আছে। এটা মানতে হবে। তারপরও গত সপ্তাহে ডিজি এডমিন স্বাক্ষরিত গণ নোটিশে অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া পররাষ্ট্র দপ্তরে দর্শনার্থী প্রবেশ সীমিত করার সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে। এদিকে রোববার সন্ধ্যায় আরেকটি অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে মহাপরিচালক প্রশাসনের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা এফ এম বোরহান উদ্দিনের স্বাক্ষরে। তাতে ৫টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধকল্পে মন্ত্রণালয়ের নানাবিধ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের ধারাবাহিকতায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওই নির্দেশনা যথাযথভাবে প্রতিপালন করতে হবে। নির্দেশনাগুলো হলো- ১. সম্প্রতি করোনা ভাইরাস আক্রান্ত দেশগুলো হতে ফেরত ব্যক্তি সংস্পর্শ পরিহার করা, কোন কারণে আক্রাক্ত ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের সংস্পর্শ পেলে অবশ্যই পরবর্তী ১৪ দিন সেল্ফ কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। ২. মন্ত্রণালয়ে প্রবেশের পর প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে মূল ভবনের আর্চওয়ের পাশে বাধ্যতামূলক তাপমাত্রা পরিমাপ করতে হবে। ৩. অফিস চলাকালে প্রয়োজন ব্যতিরেকে অন্য রুমে যাওয়া যাবে না। ৪. পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব পরিবহন ছাড়া যারা যাতায়াত করেন তাদেরকে মূল গেটের পাশের পকেট গেট দিয়ে ঢুকতে হবে। ৫. অবশ্যই প্রত্যেককে প্রবেশের সময় তার পরিচয়পত্র প্রদর্শনযোগ্যভাবে ঝুলিয়ে রাখতে হবে এবং নিরাপত্তা রক্ষীদের দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করতে হবে।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

ধর্ষক আজাদ গ্রেপ্তার

যে কারণে ধর্ষিতার ভয়

৬ জুলাই ২০২০

লকডাউনের সুফল

উত্তর কাট্টলী এখন ইয়েলো জোনে

৬ জুলাই ২০২০



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত