বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বইয়ের কাটতি

মুনির হোসেন

এক্সক্লুসিভ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৩০

বিকাল তখন তিনটা পেরিয়ে, দ্বার খোলার সঙ্গে সঙ্গে অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রবেশ করেন মাঝবয়সী এক ব্যক্তি। নাম রহমত আলী। কাজ করছেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। উদ্দেশ্য- হাতে থাকা তালিকা অনুযায়ী নতুন কিছু বই সংগ্রহ করা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশের সম্মুখ গেইট দিয়ে প্রবেশ করেই সরাসরি চলে যান সামনে থাকা বাংলা একাডেমির প্যাভেলিয়নে। কিনে নেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের তৃতীয় গ্রন্থ ‘আমার দেখা নয়াচীন’। এরপর অন্য সংগ্রহে বের হন। কথা হয় রহমত আলীর সঙ্গে।
বলেন, ‘জাতির পিতা আমাদের জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। তার বই মেলায় এসেছে জানতে পেরে অনেক আগেই ঠিক করে রেখেছি কেনার। কিন্তু সময় সুযোগ হচ্ছে না সেজন্য মেলায় আসতে পারিনি। আজ এসে প্রথমেই বইটি সংগ্রহ করি।’ এদিন রহমত আলীর তালিকায় বঙ্গবন্ধুর আরো কয়েকটি বইয়ের নামও ছিল। প্রতিবছর গ্রন্থমেলায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখক, প্রকাশক ও পাঠকদের তাকে নিয়ে আসা বইগুলো নিয়ে থাকে অনেক প্রত্যাশা। এবারের মেলা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তাকে উৎসর্গ করা হয়েছে। মেলার বিভিন্ন পয়েন্টে তার বিভিন্ন ছবি শোভা পাচ্ছে। স্টল, কিংবা প্যাভেলিয়নও বাদ যায়নি। সব জায়গায় তার প্রতি শ্রদ্ধা, আবেগ, ভালোবাসা। জাতির পিতাকে উৎসর্গ করা এ বইমেলায় তাকে নিয়ে বেশ কিছু গ্রন্থ প্রকাশ করেছে প্রকাশনীগুলো। ইতিপূর্বে অনুষ্ঠিত গ্রন্থমেলাগুলোকে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বই প্রকাশের দিক থেকে ছাড়িয়ে গেছে চলতি গ্রন্থমেলা। শুধু আয়োজক প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমিই ২৬টি নতুন বই প্রকাশ করেছে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে। অন্যান্য প্রকাশনাগুলোও বঙ্গবন্ধুকে বই প্রকাশের দিক থেকে কেন্দ্রভাগে স্থান দিয়েছে। গল্প, কবিতা, উপন্যাস, গবেষণায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন লেখকরা। প্রায় প্রতিটি স্টলেই বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বই পাওয়া যাচ্ছে। জানা গেছে, চলতি মেলায় বেস্ট সেলার বইয়ের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আমার দেখা নয়াচীন। প্রকাশকরা জানান, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে পাঠকের আগ্রহ অনেক বেশি। লেখকরাও এসব বিষয় নিয়ে লেখছেন ভালো। কাকলী প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী নাসির উদ্দিন সেলিম বলেন, পাঠকের আগ্রহ অনুযায়ী আমরা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বই প্রকাশ করি। তাছাড়া দায়িত্ববোধও রয়েছে। এসব বই বিক্রিও হচ্ছে ভালো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রওনক জাহান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের একটি স্বাধীন ভূখণ্ড দিয়েছে। তাই তাকে নিয়ে জ্ঞানচর্চা দিনদিন বাড়ছে। তরুণ প্রজন্ম তাকে ও তার কর্মজীবন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হচ্ছে। যার মাধ্যমে ইতিহাসের সঠিক চিত্র তাদের কাছে ফুটে উঠছে। মিরপুরের বাসিন্দা আবু বকর বলেন, শুধু চলতি মেলা নয়, আমি চাই প্রতিটি মেলায় বঙ্গবন্ধুর ওপর ভালো মানের বই আসবে। এর জন্য প্রকাশকরা তৎপর হতে হবে। তাহলে নতুন প্রজন্ম তাকে নিয়ে ভালো কিছু জানতে পারবে। দেশ ও বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা বৃদ্ধি পাবে। প্রথমা প্রকাশনী জানায়, তারা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বেশ কিছু বই প্রকাশ করেছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে আনিসুল হকের উপন্যাস ‘এখানে থেমো না’। বইটি তাদের প্রকাশনী থেকে সর্বোচ্চ বিক্রির তালিকায় রয়েছে। এছাড়াও মতিউর রহমানের সম্পাদনায় ‘বঙ্গবন্ধু : শ্রদ্ধায় ভাবনায় স্মৃতিতে’ বইটিও ভালো চলছে।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রকাশিত বইয়ের তালিকায় রয়েছে-  জাকারিয়া পলাশের লেখা ‘বঙ্গবন্ধু ও শের-এ কাশ্মীর’ বইটি প্রকাশ করেছে ঐতিহ্য। ড. সাজেদুল আউয়ালের ‘শেখ মুজিবুর রহমান : নির্বাচিত উক্তি’ প্রকাশ করেছ পাঠক সমাবেশ। ড. সাইদ হায়দারের লেখা ‘উপমহাদেশে বিভাজনের রাজনীতি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ প্রকাশ করেছে কাকলী প্রকাশনী। আব্দুল গাফ্‌ফার চৌধুরীর ‘গান্ধীর দর্শন এবং শেখ মুজিবের রাজনীতি’, ‘বঙ্গবন্ধু : মধ্যরাতের সূর্যতাপস’, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা’ প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। ‘সিক্রেট ডকুমেন্টস অফ ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চ অন ফাদার অফ দ্য নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ ১ম ও ২য় খণ্ড প্রকাশ করেছে হাক্কানী পাবলিশার্স। এছাড়াও রয়েছে- হারুন-অর-রশিদ ‘৭ই মার্চের ভাষণ কেন বিশ্ব ঐতিহ্য সম্পদ’ (অন্যপ্রকাশ), মুস্তফা মনওয়ার সুজন ‘বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক মতবাদ’ (উৎস), আনিসুল হক ‘বঙ্গবন্ধুর জন্য ভালোবাসা’ (পার্ল), রাহাত মিনহাজ ‘বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড কি চেয়েছিল ভুট্টোর পাকিস্তান’ (শ্রাবণ), গাজী হানিফ ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব: এক শতাব্দীর বাঁকে’ (শব্দরূপ), ইফতেখার আহমেদ ও প্রকৃতি শ্যামলিমা ‘এ স্টার্টারস গাইড: মুজিব’ (চর্চা), মুনতাসীর মামুন ‘বঙ্গবন্ধুর জীবন’ (অনন্যা), মঞ্জুরুল আলম ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ বাঙালির জন্ম ইতিহাস’ (বাঙালি), খায়রল আলম মনির ‘মহান নেতা বঙ্গবন্ধু’ (চিলড্রেন্স), জুলফিকার নিউটন ‘বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা ও স্থপতি’ (আহমদ পাবলিশিং), মুহাম্মদ সোহেল চৌধুরী ‘বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার মহাকাব্য’ (ছায়াবীথি), খায়রুল আলম মনির ‘ছোটদের হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু’ (ঝিঙেফুল) প্রভৃতি।

আপনার মতামত দিন



এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য হোটেল-গেস্ট হাউজে থাকার ব্যবস্থা

২৭ মার্চ ২০২০

করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় যে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা মানুষের সেবা করে চলেছেন, তাদের হাসপাতালের নিকটবর্তী ...

সরজমিন সিলেট

যেভাবে বদলে গেল নগরের দৃশ্যপট

২৭ মার্চ ২০২০

ব্যতিক্রমী মমতা

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে ৬৪৯ মৃত্যু ১৩

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতজুড়ে চলছে ২১ দিনের লকডাউন। এরই মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত হারে বেড়ে চলেছে। বৃহস্পতিবার ...



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত