আইসিস বধূ শামীমা এখন যেমন

মানবজমিন ডেস্ক

এক্সক্লুসিভ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:২৩

বৃটিশ নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়ার পর অনেকটাই পাল্টে গেছে আইসিস বধূ হিসেবে পরিচিত শামীমা বেগম! প্রথমবারের মতো সে আইসিসের প্রচলিত কালো বোরকা ত্যাগ করেছে। সিরিয়ার আল রোজ শরণার্থী ক্যাম্পে বোরকার বাইরে এসে প্রথমবারের মতো ছবি তুলেছে। এবার ভ্যালেন্টাইনস ডে বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে নিজের আশ্রয় বা মেক-শিফটকে সাজিয়েছিল ভালোবাসার রঙে। পরেছে জিন্সের প্যান্ট। পায়ে উঠেছে ওয়েস্টার্ন জুতা। মাথায় লাল হেড স্কার্ফ। আর নাক চকচক করছে। তার ওপর আরো জ্বল জ্বল করছে ডায়মন্ডের নাকফুল।
শামীমাকে নিয়ে সচিত্র একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে লন্ডনের অনলাইন ডেইলি মেইল। তাতেই এসব কথা বলা হয়েছে।
আরো বলা হয়েছে, এভাবে মাথায় লাল হেডস্কার্ফ, পরনে জিন্স আর ডায়মন্ডের নাকফুল পরে শামীমাকে দেখা যেতে পারতো ইংল্যান্ডের লিভিং রুমে। কিন্তু সে নিজেই সব শেষ করে দিয়েছে। যোগ দিয়েছে আইসিসে। তারপরের কাহিনী সবারই জানা। ১৫ বছর বয়সে সে স্কুল পালিয়ে যোগ দিয়েছিল আইসিসে। এখন তার বয়স ২০ বছর। সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে আল রোজ শরণার্থী শিবিরে এখন বসবাস করে মার্কিন বংশোদ্ভূত কানাডিয়ান নাগরিক কিম্বারলি পলম্যানের সঙ্গে। নতুন করে তারা তাদের আশ্রয়শিবিরের তাঁবুকে সাজিয়েছে। ভালোবাসা দিবসে নতুন করে ভালোবাসার রঙে সাজিয়েছে তা। এদিন তারা ভালোবাসার চিহ্ন হার্টস দিয়ে সাজায় তাঁবু। আর ভেতরে যোগ করে রূপকথার মতো করে লাইটিং। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো প্রথমবারের মতো তারা কালো বোরকার বাইরে এসেছে। এই শরণার্থী ক্যাম্পে এই কালো বোরকা নিষিদ্ধ। কারণ, নারী ও শিশুদের উগ্রবাদ থেকে বের করে আনার জন্য এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কিম্বারলিকে নিয়ে শামীমা যে তাঁবুতে থাকে সেখানে আছে হিটিং, ইলেকট্রিসিটি, স্যাটেলাইট টিভি এবং রান্নার জিনিসপত্র। জাতিসংঘ তাদেরকে কম্বল দিয়েছে। সেই কম্বল ব্যবহার করে তারা তাঁবুতে বানিয়েছে একটি ছোট্ট সোফা। বৃটেনের পতাকা ব্যবহার করে বানানো একটি কুশন রয়েছে শামীমা বেগমের। এটি তাকে বানিয়ে দিয়েছে তাঁবুতে তার সঙ্গে থাকা কিম্বারলি। তাঁবুতে আছে ভালোবাসা নিয়ে লেখা কবিতা। তাতে ঝুলছে উৎসাহমূলক উদ্ধৃতি।
ডেইলি মেইল আরো লিখেছে, ৫ বছর আগে ১৫ বছর বয়সে অন্য দুই স্কুলছাত্রী খাদিজা সুলতানা ও আমিরা আব্বাসকে সঙ্গে নিয়ে শামীমা বেগম পাড়ি জমায় সিরিয়ার উদ্দেশ্যে। সেখানে গিয়ে যোগ দেয় আইসিসে। সিরিয়া পৌঁছার মাত্র ১০ দিন পরেই শামীমা বিয়ে করে ডাচ্‌ নাগরিক ইয়াগো রিডিজককে। তখন ইয়াগোর বয়স ছিল ২৩ বছর। এর আগে ইয়াগো ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম গ্রহণ করে। তাকে আটকে রাখা হয়েছে কুর্দিদের একটি বন্দিশিবিরে। গত বছর শরণার্থী শিবিরে একটি পুত্র সন্তান জন্ম দেয় শামীমা। আগের দুটি সন্তানের মতো এই সন্তানটিও মারা যায়। ওই সময়ের আগেই সে বৃটেনে ফেরার আবেদন জানায়। কিন্তু সরকার তার সেই দাবি প্রত্যাখ্যান করে। তারই ধারাবাহিকতায় এ মাসে আরো একটি বড় আঘাত আসে ২০ বছর বয়সী শামীমার জন্য। সে নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়ার সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করে। সেই আপিলের প্রথম দফায় হেরে যান শামীমা। যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন চ্যানেল এবিসি নিউজকে সে বলেছে, গত বছর যখন তার নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়া হলো তখন পুরো পৃথিবী তার কাছ থেকে আলাদা হয়ে গেছে। আদালত রুলে বলেছে, শামীমার নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়া যেতে পারে। কারণ, এতে তিনি রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়বেন না। এ অবস্থায় তাকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব চাওয়ার কথা বলা হয়। কারণ, তিনি বাংলাদেশি পিতা-মাতার সন্তান।

আপনার মতামত দিন



এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য হোটেল-গেস্ট হাউজে থাকার ব্যবস্থা

২৭ মার্চ ২০২০

করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় যে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা মানুষের সেবা করে চলেছেন, তাদের হাসপাতালের নিকটবর্তী ...

সরজমিন সিলেট

যেভাবে বদলে গেল নগরের দৃশ্যপট

২৭ মার্চ ২০২০

ব্যতিক্রমী মমতা

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে ৬৪৯ মৃত্যু ১৩

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতজুড়ে চলছে ২১ দিনের লকডাউন। এরই মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত হারে বেড়ে চলেছে। বৃহস্পতিবার ...



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত