৭২ ঘণ্টা সময় দিয়ে প্রাইম মুভার শ্রমিকদের কর্মবিরতি ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে

এক্সক্লুসিভ ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:১৯

চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহনে নিযুক্ত প্রাইম মুভার ট্রেইলার চালকদের ভারী লাইসেন্স প্রদান ও চালক-শ্রমিকদের নিয়োগপত্র দেয়ার দাবিতে ২৪ ঘণ্টা কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়ন। সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়। ৭২ ঘণ্টা সময় দিয়ে আগামী ৩০শে জানুয়ারি থেকে এ কর্মসূচির ডাক দেয় সংগঠনের নেতারা। চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সমপাদক মো. আবু বক্কর ছিদ্দীকি বলেন, বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ৫ ধারা ও ২০১৮ এর ১৩(২) ধারা অনুযায়ী প্রাইম মুভার ট্রেইলার মালিকেরা এখানে কর্মরত শ্রমিকদের নিয়োগপত্র ও পরিচয় পত্র দিতে বাধ্য। এছাড়া শ্রম আইনের ১০০ ধারা অনুযায়ী দৈনিক ৮ ঘণ্টা শ্রম ঘণ্টা ও ১০৮ ধারা অনুযায়ী দৈনিক ৮ ঘণ্টার বেশি কাজ করলে অতিরিক্ত কাজের জন্য দ্বিগুণ হারে ওভার টাইম ভাতা প্রদানের বিধান থাকলেও মালিকরা তা মানছে না। এমনকি দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে শ্রম আইন অনুযায়ি ২ লাখ টাকা ক্ষতিপুরণও প্রদান করছে না। এ অবস্থায় শ্রম আইনের লঙ্ঘন ও লাইসেন্স না পাওয়ায় প্রাইম মুভার ট্রেইলার চালক ও শ্রমিকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে। তাই ৭২ ঘণ্টার মধ্যে উপরের দাবিগুলো মেনে নেয়া না হলে আগামী ৩০শে জানুয়ারি সকাল ৬টা থেকে পরেরদিন সকাল ৬টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করবে চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়ন।

আবু বক্কর ছিদ্দীকি বলেন, সারাদেশে মোট ৭ হাজার ৮৫০টি প্রাইম মুভার ও ট্রেইলার রয়েছে।
এসব প্রাইম মুভার ও ট্রেইলারে কর্মরত আছেন ১৫ হাজার ৭৮০ জন চালক ও শ্রমিক। এর মধ্যে একতৃতীয়াংশ প্রাইম মুভার চালকের ভারী লাইসেন্স নেই। অনেকে ১০-১২ বছর ধরে প্রাইম মুভার চালালেও আমলাতান্ত্রীক জটিলতা ও দুর্নীতির কারণে তারা ভারী লাইসেন্স পাচ্ছেন না। এ অবস্থায় তারা পুলিশী হয়রানি ও চাঁদাবাজির শিকার হচ্ছেন। তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ২২শে জানুয়ারি বিআরটিএ-এর চেয়ারম্যান মসিউর রহমানের নেতৃত্বে এক সভায় যে সমস্ত প্রাইম মুভার চালকদের হালকা ও মাঝারি লাইসেন্স আছে এবং তিন বছর প্রাইম মুভার চালানোর অভিজ্ঞতা আছে তাদের ভারী লাইসেন্স প্রদানের বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো ও তালিকা প্রণয়নের জন্য চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়নকে চিঠি দেওয়ার বিষয়ে জানানো হয়েছিলো। পরে ২০১৮ সালে চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ৪৫০ জনের একটি তালিকা বিআরটিয়ে বরাবর পাঠানো হয়।

২০১৯ সালে সেই তালিকার ৬৮ জনকে পরীক্ষা নিয়ে তাদের ভারী লাইসেন্স প্রদান করা হয়। তবে বাকি ৩৮২ জনের আবেদন অনিষপন্ন অবস্থায় রেখে দেওয়া হয়। সর্বশেষ চলতি বছরের পহেলা জানুয়ারী বাংলাদেশ সড়ক ফেড়ারেশন ওই ২৮২ জনকে ভারী লাইসেন্স দেয়ার জন্য বিআরটিএকে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিলেও এখনো তা কার্যকর হয়নি। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো মুছা. বলেন, এখনো ৭২ ঘণ্টা বাকি আছে মালিকরা চাইলেই শ্রমিকদের নিয়োগপত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারে। এছাড়া শ্রমিক ইউনিয়নের পাঠানো তালিকার ২৮২ প্রাইম মুভার চালকের পরীক্ষা নিয়ে তাদের ভারী লাইসেন্স প্রদানের সিদ্ধান্ত নিতে পরে। অন্যথায়, ৩০শে জানুয়ারির কর্মবিরতির পরে চট্টগ্রামের পাঁচ জেলায় যেসকল শ্রমিক সংগঠন আছে তাদের সবাইকে নিয়ে আরো বড় কর্মসূচির ঘোষণা দেবে শ্রমিক ফেডারেশন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার ট্রেইলার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. রুহুল আমীন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সমপাদক অলি আহমদ, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র্থর চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি মো. মছিউদ্দৌলা, চট্টগ্রাম ট্রাক-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো শফিকুর রহমান, সাধারণ সমপাদক আবদুস সবুর প্রমুখ।

আপনার মতামত দিন



এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

করোনা ভাইরাসে

নতুন চিকিৎসা ১২ ঘণ্টায় সফলতা!

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সাক্ষাৎকারে মানারাত ইউনিভার্সিটির ভিসি

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ জ্ঞান সৃষ্টি করা

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত