লাহোরে তৃতীয় টি-টোয়েন্টি শুরু বিকাল ৩টায়

পাকিস্তানে শেষ রক্ষা হবে তো!

স্পোর্টস রিপোর্টার

খেলা ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার

হারলে পয়েন্ট খোয়ানোর ভয় পাকিস্তানের। অন্যদিকে টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে থাকা দলটির বিপক্ষে জিতলেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল টাইগারদের সামনে। তবে টানা দুই ম্যাচ হেরে ইতিমধ্যেই সিরিজ খুইয়ে এখন হোয়াইটওয়াশের মুখে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দল। আজ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে সম্মান বাঁচানোর লড়াইয়ে নামছে তারা। এ ম্যাচ দিয়ে ১১ বছর পর টাইগারদের পাকিস্তান সফরের প্রথম ধাপ শেষ হচ্ছে। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দলের শেষ রক্ষা হবে তো? লাহোরে কেন পারছে না টাইগাররা? পেসার শফিউল ইসলাম বলেন, ‘কেন হচ্ছে না! সেই উত্তর দেয়া কঠিন। ক্রিকেটে কিছু বলা যায় না ঠিক করে। তবে দলের সবাই চেষ্টা করছে।
পাকিস্তানের দিন গেছে বলতে হবে। আমরাও কিছু ভুল করেছি। আর টি-টোয়েন্টিতে ছোট ছোট ভুলই হারের কারণ হয়।’   
নানা ভয়-শঙ্কা নিয়ে পাকিস্তান সফরে যায় বাংলাদেশ দল। ১০ হাজারে বেশি নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে স্বস্তির কথা বলেছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। প্রথম ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে বলেন সব ভয় বাংলাদেশ থেকে বিমানে উঠার আগে রেখে এসেছেন। কিন্তু মাঠে নামার পর তাদের মধ্যে লক্ষ্য করা গেছে জড়তা। সদস্য শেষ হওয়া বঙ্গবন্ধু বিপিএলে ঝড় তোলা ব্যাটসম্যানদের গাদ্ধাফি স্টেডিয়ামে যেন খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছে না। প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটে ১৪১ রান করে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে।  শুরু থেকেই খেলতে থাকে ওয়ানডে মেজাজে। দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল ৩৯ রান করতে খেলে ৩৪ বল। তার সঙ্গে তরুণ ওপেনার নাঈম শেখ ৪৩ রান করেন ৪১ বলে। এরপরের ব্যাটসম্যানরা ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। এই ম্যাচে লড়াই হলেও পাকিস্তান ঠিকই জয় তুলে নেয় ৫ উইকেট।
দ্বিতীয় ম্যাচে ছিল সিরিজ বাঁচানোর সুযোগ। শুধু তামিম ৫৩ বলে ৬৫ রানের ইনিংস খেলে দলকে ১০০ ছাড়াতে অবদান রাখে। শেষ দিকে আফিফের ২১ রানে ভর করলেও ১৩৬-এ থামে বাংলাদেশ। জবাবে পাকিস্তান ১ উইকেট হারিয়ে পৌঁছে যায় জয়ের বন্দরে।
দুই ম্যাচের হারের কারণটা স্পষ্ট ব্যাটিং ব্যর্থতা। কিন্তু বিপিএলে সেরা পারফরমাররা কেন এমন হতাশ করলেন? এ বিষয়ে শফিউল বলেন, ‘দেখেন সামর্থ্য ছিল। কিন্তু আমাদের দলটাও কিন্তু নতুন ও তারুণ্য নির্ভর। তামিম ও রিয়াদ ভাই ছাড়া। আমরা বিপিএল খেলে আসছি। তাই ভালো খেলা সম্ভব ছিল। প্রথম ম্যাচে ১০ বা ১৫ রান কম হয়েছে। দ্বিতীয় ম্যাচে বাবর আজম অসাধরণ খেলেছে। আসলে ওরা ভালো খেলেছে বলে ওদের দিকে ফলটা গেছে। আমাদের আরো ভালো খেলা উচিত ছিল।’
আজ শেষ ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াতে হলে ব্যাটিংয়ে ভালো করার কোনো বিকল্প নেই। বিশেষ করে টপ ও মিডল অর্ডারকে দায়িত্ব নিতে হবে। নিজেদের সেরাটা দিয়েই খেলতে হবে। সেটিও করতে হবে টি-টোয়েন্টি  মেজাজে। অন্যদিকে বল হাতেও টাইগার বোলাররা সুবিধা করতে পারছেন না। তিন পেসার সেরাটা দিতে ব্যর্থ। স্পেশালিস্ট স্পিনার বলতে তরুণ আমিনুল ইসলাম। দ্বিতীয় ম্যাচে মিঠুনের পরিবর্তে দলে আসে অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান। ব্যাটে-বলে তিনিও ব্যর্থ। তাই আজ শেষ ম্যাচে দলের একাদশে পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। আজ একাদশে জায়গা পেতে পারেন রুবেল হোসেন ও অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা হাসান মাহমুদ।
তবে দলের ব্যাটিংটা নিয়ে চিন্তা সবচেয়ে বেশি। তামিম ও নাঈম শেখ রান পেলেও খেলতে পারছেন না টি-টোয়েন্টি মেজাজে। লিটন দাস, সৌম্য সরকাররা বের হতে পারছেন না ব্যর্থতার জাল থেকে। অধিনায়ক মাহমদুল্লাহও ব্যাট হাতে ব্যর্থ। তাই আজ হোয়াইটওয়াশ বাঁচাতে হলে জ্বলে উঠতে হবে দল হিসেবে।

আপনার মতামত দিন



খেলা অন্যান্য খবর

হার না মানা জোড়া শতকে জবাব

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ১-০ লিভারপুল

হেরে অ্যাটলেটিকোকে হুঁশিয়ারি ক্লপের

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

নিউজিল্যান্ড-ভারত প্রথম টেস্ট শুরু আজ

‘সুশৃঙ্খল’ কিউইদের নিয়ে চিন্তায় কোহলি

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০



খেলা সর্বাধিক পঠিত