বিদেশে সেলিম প্রধানের ২০০ কোটি টাকা

প্রথম পাতা

আল-আমিন | ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০১
অনলাইন ক্যাসিনো কিং সেলিম প্রধান হুন্ডির মাধ্যমে ২০০ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন। ওই টাকা সুইজারল্যান্ডের একটি কো-অপারেটিভ সোসাইটিতে তিনি রেখেছেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়াও থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরের একাধিক  ব্যাংক অ্যাকাউন্টে তার টাকা ছাড়াও দুইটি ফ্ল্যাট রয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে। দেশের একাধিক ব্যাংকে তার ২৫ কোটি টাকার অনুসন্ধান পেয়েছে গোয়েন্দারা। অবৈধভাবে অনলাইন ক্যাসিনো থেকে আয়কৃত টাকা তিনি বিদেশে পাচার করেছেন। পি-২১ ও পি-২৪ নামে দুইটি সাইট চালাতেন সেলিম। ওই সাইটের মূল ডোমেনের মালিক ছিলেন উত্তর কোরিয়ার নাগরিক।
সেলিম প্রধান বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট্র সূত্র জানিয়েছে, তথ্যের প্রয়োজনে তাকে আবারও রিমান্ডে নেয়া হতে পারে। গত ৩০শে সেপ্টেম্বর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে থাই এয়ারওয়েজের একটি বিমানের ফ্লাইট থেকে তাকে নামিয়ে আনে র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ। পরে বনানীতে তার বাসা ও গুলশানের অফিসে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমানের বিদেশী মুদ্রা, মদ, একটি বড় সার্ভার, চারটি ল্যাপটপ ও দুটি হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়েছে। সূত্র জানায়, এ ঘটনায় গত ১লা অক্টোবর র‌্যাব-১ এর নায়েব মো. দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে গুলশান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও মানি লন্ডারিং আইনে দুটি মামলা করে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তাকে দুই দফায় রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। এছাড়াও ২৭শে অক্টোবর সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে দুদক বাদী হয়ে ১২ কোটি ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৫৪ টাকা অবৈধভাবে অর্জনের অভিযোগে আদালতে একটি মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় আদালত তাকে ৭ দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন। এ বিষয়ে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম বিভাগের পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম গতকাল মানবজমিনকে জানান, সেলিম প্রধান আদালতের আদেশে কারাগারে আছেন। তাকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, সেলিম প্রধান জাপানে থাকা অবস্থায় উত্তর কোরিও নাগরিক মিস্টার দো এর সঙ্গে পরিচয় ঘটে। সেখানে তিনি অনলাইন ক্যাসিনোর বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। পরে বাংলাদেশে ফিরে তিনি পি-২১ ও পি-২৪ নামে দুইটি সাইট চালাতেন। গুলশানে আলিশান অফিস গড়ে তুলেছিলেন ওই ক্যাসিনো ডন। ওই সাইট থেকে তিনি অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকা টাকা আয় করেছেন। অনলাইনে ক্যাসিনো বাংলাদেশে অনুমোদন না থাকার কারণে ওই টাকা তিনি অবৈধভাবে আয় করেছেন। সূত্র জানায়, অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী হিসাবে তিনি মাল্টায় যেতেন। সেখানে সুইজারল্যান্ডের নাগরিক সানরাইজের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সেই পরিচয়ের সূত্রে ধরে তিনি একাধিকবার সুইজারল্যান্ডে গেছেন। উদ্ধার করা তার পাসপোর্টে সুইজারল্যান্ডের ভিসা লক্ষ্য করেছেন তদন্তকারীরা। সেলিম প্রধান সুইজারল্যান্ডের চেইঞ্জ কো-অপারেটিভ সোসাইটি নামে একটি প্রতিষ্ঠানে বাংলাদেশি টাকায় ২০০ কোটি রেখেছেন বলে জানা গেছে। তদন্তকারীরা বিষয়টি সুইজারল্যান্ডের বাংলাদেশের দূতাবাসকে অবহিত করেছেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অবশেষে পদত্যাগে বাধ্য হলেন মুসলিম অধ্যাপক

‘ছবিটি আমার জীবনে একটি অদ্ভুত পরিবর্তন এনেছে’

কড়া নিরাপত্তায় সুপ্রিম কোর্ট, এজলাসে প্রবেশে তিন ধাপে তল্লাশি

কেরানীগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত বেড়ে ৯

রোহিঙ্গা নির্যাতনের ন্যায়বিচার চায় অক্সফ্যাম

বিক্ষোভ মোকাবিলায় উত্তর-পূর্ব ভারতে নামানো হল সেনা

জেনারেলদের পক্ষে ওকালতি

বৃটেনে সাধারণ নির্বাচন আজ

কেরানীগঞ্জে কারখানায় আগুন

খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি আজ কড়া নিরাপত্তা

টিসিবি’র পচা পিয়াজ নিয়ে ক্রেতাদের ক্ষোভ

কুষ্ঠরোগীদের জন্য ওষুধ তৈরি করতে দেশি প্রতিষ্ঠানের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

হাইকোর্ট মোড়ে ৩ মোটরসাইকেলে আগুন

ভিন্নমতের কারণে ১০ বছরে নিহত ১৫২৫, গুম ৭৮১

ভারতীয় নাগরিকপঞ্জীর সমালোচনায় রানা দাসগুপ্ত

ইউএনডিপি’র মানব উন্নয়ন সূচকে এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ