ভীতির পরিবেশ, অবিশ্বাসই ভারতের স্লথ অর্থনীতির কারণ: মনমোহন সিং

কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার

 ভীতির পরিবেশ, অবিশ্বাস এবং মানুষের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের অভাবই ভারতের শ্লথ অর্থনীতির অন্যতম কারণ বলে বর্ণনা করেছেন। সোমবার দ্য হিন্দু পত্রিকায় এক সম্পাদকীয নিবন্ধে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ মনমোহন সিং বলেছেন, দেশের শিল্পপতি এবং উদ্যোগপতিদের প্রতি গভীর সন্দেহের কারণেই দেশের অর্থনৈতিক গতি শ্লথ হয়েছে এবং সামাজিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়েছে। তাই তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে মন থেকে গভীর সন্দেহ দূর করার পরামর্শ দিয়েছেন। “ভারতের অর্থনৈতিক অস্থিরতার উৎস” শীর্ষক নিবন্ধে সাবেক প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, গভীর অবিশ্বাসের বিষাক্ত সমন্বয়, ব্যাপক ভীতি এবং আমাদের সমাজে আশাহত হওয়ার মানসিকতা আর্থিক কার্যকারিতার কণ্ঠরোধ করছে,এবং যার কারণে আর্থিক গতিও শ্লথ হয়ে পড়েছে। সেইসঙ্গে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশ্যে বলেছেন, আমি প্রধানমন্ত্রীকে আবেদন করব, শিল্পপতি ও উদ্যোগপতিদের থেকে সন্দেহ দূরে রাখতে এবং আমাদের মধ্যে বিশ্বাস ফেরানোর চেষ্টা করতে হবে । পাশাপাশি বিশ্বাসী সমাজ তৈরি করতে হবে, যাতে আমরা স্বাভাবিক প্রফুল্লতা ফিরে পাই এবং আর্থিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারি। মনমোহন সিংয়ের মতে, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হওয়ার কারণ ১৫ বছরের সর্বনি¤œ জিডিপি, ৪৫ বছরে সর্বাধিক কর্মহীনতা, চার দশকে পারিবারিক খরচ সর্বনি¤œ হওয়া, অনৈতিক ঋণএবং ১৫ বছরে সবচেয়ে কম বিদ্যুৎ-এর ব্যবহার। তিনি মনে করেন,এগুলো অর্থনীতির অধোগতির প্রকাশ মাত্র।
মনমোহন সিং লিখেছেন, সমাজের বিশ্বাস ও আত্মবিশ্বাসের কাঠামো ছিন্ন হয়েছে এবং ভেঙে পড়েছে। তাঁর কথায়, সমাজে প্রতীয়মান ভয়ের আবহাওয়া রয়েছে। এগুলির কারণ মোদি সরকারের অন্যভাবে প্রমাণিত না হলেও বিশ্বাসঘাতক' নীতির ফল। তিনি জানিয়েছেন, অনেক শিল্পপতিই তাঁকে বলেছেন, সরকারি সংস্থার হেনস্থার ভয় রয়েছে তাঁদের। নতুন ঋণ দিতে অনিচ্ছুক ব্যাঙ্কাররা। নতুন প্রকল্প আনতে ইতস্তত করছেন উদ্যোগপতিরা, ভবিষ্যতের ভয়ে তাঁরা এগুলো করছেন। প্রযুক্তির স্টার্ট-আপ, আর্থিক বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থানের একটি নতুন দিশা, সেটিও লাগাতার নজরদারিতে এবং গভীর সন্দেহের আবহাওয়ায় রয়েছে । সরকারের নীতি নির্ধারকরা সত্য কথা বলতে ভয় পাচ্ছেন অথবা বুদ্ধিদীপ্তভাবে সৎ নীতির আলোচনায় যুক্ত থাকছেন। এই গভীর ভীতি এবং অবিশ্বাস, যাঁরা আর্থিক বৃদ্ধির অংশ তাঁদের মধ্যেই রয়েছে। তিনি বলেছেন, সামগ্রিক পরিন্থিতি এখন যা তা হল, ঋণ দিতে অক্ষম ব্যাঙ্কার, বিনিয়োগে অক্ষম শিল্পপতি, কাজ করতে অক্ষম নীতি নির্ধারক অর্থনৈতিক উন্নতিকে থামিয়ে দিয়েছে । নোটবাতিলের প্রসঙ্গ তুলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, নোট বাতিল কোনও ফলপ্রসু সঠিক ভাবনাচিন্তার ফসল নয়। মনমোহন সিং জানিয়েছেন,সবাইকে খারাপ ভাবা এবং ভাল-বনাম খারাপের সরকারি' নীতি ভাল আর্থিক বৃদ্ধির উপকরণ হতে পারে না। চাহিদা খারাপ থাকলে এবং তারসঙ্গে ব্যাপক কর্মহীনতা থাকলে, মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে বলেও সতর্ক করে দিয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী। চিনের আর্থিক মন্দার প্রসঙ্গ টেনে তিনি সেটির সুযোগ নিয়ে ভারতের রপ্তানী বৃদ্ধির দিকে নজর দিতে বলেছেন।



আপনার মতামত দিন

ভারত -এর সর্বাধিক পঠিত