১৫০ রানেই শেষ বাংলাদেশ

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৪ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:৫৮
ইন্দোরে ভারতের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে মাত্র ১৫০ রানে গুটিয়ে গেল বাংলাদেশ। ভারতের মোহাম্মদ শামি ৩টি, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, ইশান্ত শর্মা ও উমেশ যাদব প্রত্যেকে নিয়েছেন ২টি করে উইকেট। 
টি ব্রেকে যাওয়ার সময় বাংলাদেশের মোট সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৪০/৭। এরপর মাত্র ১০ রান যোগ করতে পারে টাইগাররা। লিটন ২১ রান করে আউট হন ইশান্তের বলে। এরপর রানআউটের শিকার হন তাইজুল ইসলাম (১)। দলীয় ১৫০ রানে মিরাজকে এলবির ফাঁদে ফেলে বাংলাদেশের ইনিংসের ইতি টানেন শামি।
লাঞ্চ থেকে ৬৩/৩ সংগ্রহ নিয়ে দ্বিতীয় সেশন শুরু করে বাংলাদেশ। অধিনায়ক মুমিনুল ও মুশফিকের ব্যাটে দারুণ কিছুর আভাস মিলে। চতুর্থ উইকেটে এই দুই ব্যাটসম্যান ৬৮ রানের জুটি গড়েন।
দলীয় ৯৯ রানে মুমিনুল ব্যক্তিগত ৩৭ রানে আউট হলে মাঠে আসেন মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু একটি অপ্রয়োজনীয় সুইপ শট খেলতে গিয়ে ব্যক্তিগত মাত্র ৭ রানে আউট হন এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। দুজনকে ফেরান অশ্বিন। টি ব্রেকের আগের ওভারে মোহাম্মদ শামি এক ওভারে দুই উইকেট তুলে নেন। তিনবার জীবন পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেননি বাংলাদেশের সাবেক টেস্ট অধিনায়ক মুশফিক। শামির রিভার্স সুইং বুঝতে না পেরে ৪৩ রানে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন মুশফিক। পরের বলে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে শূন্য রানে আউট হন মেহেদি মিরাজ। দ্বিতীয় সেশনে ২৮ ওভারে ৭৭ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অপহরণের ৫দিন পর মিললো শিশুর লাশ

তামিলদেরও নাগরিকত্ব বিলে আনার আহ্বান

নাগরিকত্ব বিল মুসলিমদের বিরুদ্ধে বৈষম্য

‘সুচির আত্মপক্ষ সর্মথনের সুযোগ আছে বলে মনে হয় না’

কলকাতার বাজারে পদ্মার ইলিশ কিনলে পেঁয়াজ ফ্রি

বৃটিশ নির্বাচনে বাংলাদেশ, পাকিস্তানের মুসলিম প্রার্থীদের রেকর্ড

শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ, স্কুল কর্মচারি গ্রেপ্তার

আবেগি চিরকুট লিখে বিষপান, অধ্যক্ষের কক্ষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো নূপুর

আনোয়ারের কাছেই ক্ষমতা হস্তান্তর করবো: মাহাথির

‘সব মিলিয়ে পছন্দ হলে সামনে জানাবো’

নিউজার্সিতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৬

সেনা প্রধানসহ মিয়ানমারের ৪ কর্মকর্তার ওপর ফের নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের

গণহত্যায় রক্তস্রোত বয়ে গেছে

আইনের শাসন সমুন্নত রাখতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে

জয় বাংলাকে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ব্যবহারের মত হাইকোর্টের

নৃশংসতার মুখপাত্র