পরিচয় মিলেছে শিশুটির

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে | ১৩ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৪৮
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির পরিচয় মিলেছে। তার নাম নাইমা। বাড়ি চাঁদপুরের পশ্চিমপাড়ে। ফেসবুকে ছবি দেখে চিনতে পারেন নাইমার চাচা মানিক। শিশুটির বাবা মাঈনুদ্দিনসহ তারা সেখানে যাচ্ছেন।
জানা যায়, সিলেটে মাজার জিয়ারত শেষে মা কাকলী ও দাদা-দাদী, নানা-নানীর সঙ্গে নাইমা চাঁদপুরে ফিরছিলো। এখনো নাইমার মা ও নানীর খোঁজ মেলেনি। নাইমার দাদী কুমিল্লা হাসপাতালে ভর্তি আছেন। নাইমাকে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয় যুবক ফাহিম।
তিনি  নাইমার পাশাপাশি আরেক শিশুকেও নিয়ে যান। সেই শিশুটি মারা যায়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় ১৫ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। এ দুর্ঘটনায় একটি নাইমাকে উদ্ধার করা হয়েছে। তার অভিভাবক খুঁজে না পাওয়ায় সাঈদ রিমন নামের একজন ফেসবুকে পোস্ট দেন।  তিনি লিখেন, এই বাচ্চাটি আজ ভোরে তূর্ণা এক্সপ্রেস ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনার সময় আহত অবস্থায় উদয়ন এক্সপ্রেসে ছিলো। মেয়েটির মা বাবা বা কোনো অভিভাবকের সন্ধান পাওয়া যায়নি। মেয়েটি বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হসপিটালে চিকিৎসাধীন আছে। দয়া করে ছবিটি বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে দিন এবং বাচ্চাটির পরিবারের সন্ধান পেতে সহায়তা করুন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

উল্লাপাড়ায় গৃহবধূর চুল কেটে দেয়া মামলার প্রধান আসামী জেলে

চেক প্রজাতন্ত্রে হাসপাতলে গুলিতে ৪ হত্যা

জয় বাংলা স্লোগান আমাদের অস্তিত্বের সাথে সম্পর্ক: হাইকোর্ট

হেগে রোহিঙ্গা নারীর ক্ষোভ

‘গাম্বিয়া গাম্বিয়া’ স্লোগানে মুখর রোহিঙ্গা ক্যাম্প

সুপ্রিম কোর্টের এফিডেভিট শাখার তদারকিতে দুই কর্মকর্তা

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে

মানবতাবিরোধী অপরাধ: টিপু সুলতানের রায় বুধবার

নারায়ণগঞ্জে নারী শ্রমিককে গণধর্ষণ, আটক ৪

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে উত্তাল উত্তর-পূর্ব ভারত

আমরা একটি ফেয়ার এন্ড ভ্যালেন্সড সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে চাই

দেশে আজ মানবাধিকার বলতে কিছুই নেই: ফখরুল

মুসলিমদের বাদ রেখে নাগরিকত্ব বিল নিয়ে ভারতে বিতর্ক, বিক্ষোভ, ধর্মঘট

শহীদ মিনারে অজয় রায়কে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা, মরদেহ দেয়া হবে বারডেমে

আবারও মিয়ানমারের পাশে থাকার অঙ্গীকার চীনের

ময়মনসিংহে সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ, দুর্ভোগ