সৌদি আরবে আরো ৩০০০ সেনা মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র

মানবজমিন ডেস্ক

দেশ বিদেশ ১৩ অক্টোবর ২০১৯, রোববার

তেল স্থাপনায় ভয়াবহ হামলার পর সৌদি আরবে অতিরিক্ত ৩০০০ সেনা ও সমরাস্ত্র মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যদিয়ে সেখানকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত করা হবে। শুক্রবার এ অনুমোদন দিয়েছে পেন্টাগন। এর মধ্যে অতিরিক্ত দুটি প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ব্যাটারি, একটি থাড ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী সিস্টেম, দুটি ফাইটার স্কোয়াড্রন এবং একটি এয়ার এক্সপেডিশনারি উইং মোতায়েন অনুমোদন করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এস্পার।  পেন্টাগনের এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, সৌদি আরবের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত করতে সেখানে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের বিষয়টি সৌদি ক্রাউন প্রিন্স ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোহাম্মদ বিন সালমানকে শুক্রবার সকালে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী এস্পার। তিনি বলেছেন, সার্বিক পরিস্থিতিতে সৌদি আরবে আরো ৩০০০ মার্কিন সেনা মোতায়েন করা হবে। এই সংখ্যা গত মাসে সেনা মোতায়েন করার সিদ্ধান্তের অতিরিক্ত। এস্পার পরে সাংবাদিকদের বলেছেন, উপসাগরীয় অঞ্চলে অব্যাহত হুমকি বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে এই সেনা মোতায়েন।
এ ছাড়া সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে আলোচনার পর এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মোহাম্মদ বিন সালমান ইরানের অধিক আগ্রাসন থেকে সুরক্ষা কামনা করেন। এস্পার বলেন, এ জন্য তিনি অতিরিক্ত সহায়তার অনুরোধ করেছিলেন।

উল্লেখ্য, মে মাস থেকে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র তার সেনা সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে। এ সংখ্যা প্রায় ১৪০০০। তবে গত মাসে সৌদি আরবের তেলক্ষেত্রে যে দুটি ভয়াবহ হামলা হয় তারপর সেখানে প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা বাড়ানোর কথা বলে যুক্তরাষ্ট্র। তারই অংশ হিসেবে এই সেনা মোতায়েন। ওই হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করে সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয়ান কিছু দেশ। তবে এর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান। ওদিকে সৌদি আরবে সেনা মোতায়েন নিয়ে ইরান প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। তাদের আশঙ্কা একটি যুদ্ধের দিকে অগ্রসর হচ্ছে প্রতিপক্ষ। কারণ, গত মাসে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স বলেন, উদ্ভূত সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানের চেয়ে সামরিক সমাধানের পক্ষে রিয়াদ। অর্থাৎ তিনি যুদ্ধের পক্ষে। কিন্তু তিনি তাতে হুঁশিয়ারি দেন যে, এমনটা বেছে নিলে তেলের দাম আকাশ ছুঁতে পারে।

দেশ বিদেশ অন্যান্য খবর

বাজার সম্প্রসারণে জার্মান বিনিয়োগ পেলো ওয়ালটন

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণে বিশ্বের দ্রুত অগ্রসরমান ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড হিসেবে ওয়ালটনের পাশে দাঁড়াচ্ছে জার্মান বিনিয়োগ এবং ...

ট্রাম্পকে অভিশংসনের দুটি আর্টিকেল অনুমোদন কংগ্রেসে

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন প্রক্রিয়ায় দুটি অভিযোগ বা আর্টিকেল অনুমোদন করেছে কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের ...

ক্ষমতা না-ও ছাড়তে পারেন মাহাথির মোহাম্মদ

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

 ২০২০ সালের পরেও ক্ষমতায় থেকে যেতে পারেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ। কাতারের রাজধানী দোহা’য় ...

সুদানের ক্ষমতাচ্যুত বশিরের রায় ঘোষণা

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

প্রায় ত্রিশ বছর পর ক্ষমতাচ্যুত সুদানের শাসক ওমর আল বশিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা ...

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল সফরে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যের সতর্কতা

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

 নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনকে কেন্দ্র করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে চলমান সহিংস বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে ভ্রমণ সতর্কতা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ...

বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনে ঢাকা-দিল্লির ‘স্বর্ণালী’ সম্পর্ক কেঁপে উঠেছে

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে ‘ট্রাবল-ফ্রি’ বা ঝামেলামুক্ত হিসেবে দেখে ভারত, যেখানে বহুবিধ সমস্যা রয়েছে। এমনকি বলা ...

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের জীবনাদর্শ অনুসরণ করতে হবে: ঢাবি ভিসি

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন,শহীদ বুদ্ধিজীবীদের জীবনাদর্শ অনুসরণ করে উদার, অসাম্প্রদায়িক ও ...

বিজয়ের শেষ ৩ দিন পাগলা কুকুরের মতো ছিল হানাদাররা

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

 চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের শেষ ৩ দিন পাক হানাদার বাহিনীর আচরণ ছিলো পাগলা কুকুরের মতো। রসদ ...

এনআরসি সমস্যা উপমহাদেশে অস্থিতিশীল অবস্থা তৈরি করবে-মির্জা ফখরুল

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

ভারতের এসআরসি বিল শুধু বাংলাদেশেই নয় পুরো উপমহাদেশে একটা অস্থিতিশীল অবস্থা তৈরি করবে বলে মন্তব্য ...





পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

ahammad

২০১৯-১২-১৪ ১২:১৮:৪৬

জনাব,জুয়েল সাহেব জনগনের শেষ বিশ্বাসের জায়গা সশস্রবাহিনী। দয়া বির্তকসৃষ্টির সুযোগ করে দিবেন না। কথায় বলে ঠকুরঘরে কেরে,আমি কলা খাই নাই।

আপনার মতামত দিন

দেশ বিদেশ সর্বাধিক পঠিত