এ লজ্জা রাখি কোথায়?

ষোলো আনা

শামীমুল হক | ১১ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:০১
ক্ষমা চাইতেও লজ্জা হচ্ছে। তারপরও মাথা নিচু করে বলছি, ক্ষমা করে দিস বাবা আবরার। তোকে রক্ষা করতে না পারার ব্যর্থতা এ দেশের। দেশের মানুষের। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ছাত্র হয়ে নিশ্চয় গর্ববোধ করতি। কিন্তু এটা হয়তো জানতি না, এখানেই রয়েছে যমদূতদের বাস। যাদের সঙ্গে একই ক্যাম্পাসে ঘুরতি, পড়তি ওরাই তোর যমদূত হয়ে হাজির হবে। এটা কি কোনোদিন ভেবেছিলি? অথচ দেশবাসী দেখলো তোর মতো আবরারকে মেরে ওরা উল্লাসনৃত্য করেছে।
মহাউৎসবে তোর ওপর হামলে পড়েছিল শয়তানের দল। তোর পিঠের নীল দাগ দেখেই এটা বুঝতে পেরেছি। ভাবছি, কোথায় মানবতা? কোথায় গেল ভালোবাসা। ওদের মন কোন ধাতুতে তৈরি? ওদের জন্ম কোন জগতে? সত্যিই কী ওরা মানব সন্তান?

আবরার সামনে পরীক্ষা তাই ছুটির সময়টুকুও বাড়িতে না থেকে তুই ছুটে এসেছিলি প্রিয় ক্যাম্পাসে। শনিবার সকালে মায়ের আদর আর বাবার ভালোবাসা নিয়ে বিদায় নিয়েছিলি বাড়ি থেকে। যথারীতি ক্যাম্পাসে ফিরে খবরও দিয়েছিলি। কিন্তু এই রাতই যে তোর জীবনে অভিশপ্ত রাত হবে তুই কি জানতি। হায়েনারা যে তোর মতো মায়াবী আবরারের পথ চেয়ে বসে আছে সেটা কে জানতো? নীরব রাতে তোর ওপর হামলে পড়ে ওরা। তোর প্রাণবায়ু উড়ে না যাওয়া পর্যন্ত ওরা ওদের কাজ চালিয়ে যায়। আফসোস, তোর মতো মেধাবী সন্তানকে দেশ হারালো। তোর লাশ যখন কুষ্টিয়ার পথে তখন গ্রেপ্তারকৃত হায়েনাদের একজনের বেহায়া হাসি জাতি দেখেছে ঘৃণা ভরে। জানি না, যে মায়ের গর্ভে এসব হায়েনাদের জন্ম  সে মায়েরা তাদের সন্তানকে নিয়ে গর্বিত না দুঃখিত। তবে, আমি নিশ্চিত সেসব মায়েরা যদি মানুষ হয়ে থাকেন তাহলে এমন সন্তান জন্ম দেয়ার গ্লানি বয়ে বেড়াবেন আজীবন। আবরার তুই পরপারে ভালো থাকিস। জানিস, আবরার, লজ্জা হচ্ছে, লজ্জা। কেমনে তোর সঙ্গে কথা বলি? তোর সামনে মুখ দেখাবো কি করে? এ লজ্জা কোথায় রাখি বল? তোর মায়ের বুক ফাটা আর্তনাদ বুকে এসে বিঁধছে। তোর বাবার বোবা কান্না বৃষ্টি হয়ে ঝরছে। সত্যিই আমরা অপরাধী।


এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Shahjahan Sarkar Sha

২০১৯-১০-১৭ ১৯:৪৪:৫৮

বাংলাদেশের সকল মা বাবা এবং এদেশের সবাইর নিকট বিশেষ অনুরোধ এই আবরার হত্যাকারীরা যেন আজীবন তিলে তিলে এই জগন্যতম অপরাধের শাস্তি ভোগ করে I কাউকে ফাঁসি দেয়া অথবা খুন করা উভয়ই এই শতাব্দীর জগন্যতম অপরাধ বলে বিবেচিত I দেখুন একজন অন্য আরেকজনকে খুন করেছে ওই একজনকে আবার আরেকজন খুনের বদলে খুন করেছে তাহলে দুইটাই খুন I ওই খুনিদের মা বাপ্ ভাই বোন সবাই আবরারের জন্য যেমন অন্তর ধুকে ধুকে কাঁদে তেমনি ওদের আপন সন্তানের জন্যও কাঁদে তাই ভেবে দেখুন হাতের রক্ত ধুতে গিয়ে আবারো রক্ত দিয়ে ধোয়া হলে শুধু রক্তই থেকে যাবে I ওদের বেঁচে থাকতে দিন তাহলে ওদের মাধ্যমে অনেক মানুষ এই ধরণের জগন্য পরাধ থেকে বিরত থাকবেI

মাসুম

২০১৯-১০-১১ ১৪:০৮:৫১

এ লজ্জা বুয়েট ভিসির মাথায় রাখুন। ওনার কোনো লজ্জা নেই, তাই টেরও পাবেন না।

সারওয়ার হোসাইন

২০১৯-১০-১০ ১৯:০৪:৩৯

কান্না ধরে রাখতে পারলাম না । কেন জানি দু চোখের দু কোন বেয়ে দু ফোঁটা জল নিজের অজান্তেই কখন যে গড়িয়ে পড়লো। সত্যি.... সত্যিই বড় লজ্জিত আমরা বাংগালী জাতি আবরার তোমার কাছে। তুমি সুখে থেকো ওপারে আবরার। ক্ষমা করে দিও আমাদে.........।

আপনার মতামত দিন