স্কুলছাত্রীকে অচেতন করে ধর্ষণ, ছবি ধারণ, অতঃপর...

অনলাইন

ফেনী প্রতিনিধি | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:০৫ | সর্বশেষ আপডেট: ৮:০৩
ফেনীর সোনাগাজীতে দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে অচেতন করে ধর্ষণ করেছে এক বখাটে। পরে আপত্তিকর ছবি তুলেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আশফাকুল রহমান বাবলাকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের বাদামতলী এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার আশফাকুল দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের হরিরামপুর আদর্শ গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে। সে দীর্ঘদিন সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের বাদামতলী এলাকায় নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করার পাশাপাশি স্ত্রীসহ ভাড়া বাড়িতে থাকতো।

সোনাগাজী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সাইফুদ্দিন জানান, গত রোববার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রী তার নানাবাড়িতে বেড়াতে আসে। রাত আটটার দিকে বাসার ভাড়াটে আশফাকুল কোমল জাতীয় পানির মধ্যে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে এনে ছাত্রী ও তার নানা-নানিকে দেন।


কোমল পানীয় খাওয়ার কিছুক্ষণ পর ঘরের সবাই অচেতন হয়ে পড়েন। পরে গভীর রাতে ঘরে ঢুকে আশফাকুল ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে ও নানীর ব্যবহৃত মুঠোফোনে আপত্তিকর ছবি তোলে।

সোমবার সকালে বিষয়টি টের পেলে বাড়ির লোকজন আশফাকুলকে খুঁজে বের করতে তৎপর হয়ে ওঠেন। পরে বিকালে ছাত্রীর মামা বাদী হয়ে আশফাকুলকে আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ আরও জানায়, নির্মাণ শ্রমিক আশফাকুল গত কয়েক মাস আগে স্ত্রীসহ ওই বাড়িতে ভাড়া নিয়ে থাকছেন। সে সুবাধে ওই পরিবারের লোকজনের সঙ্গে তার ভালো সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সোমবার সন্ধ্যায় স্থানীয় লোকজন আশফাকুলকে খুঁজে বের করে বেধড়ক পিটিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মঈন উদ্দিন আহমেদ বলেন, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ছাত্রীটিকে ফেনী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ আদালতে ২২ ধারায় তার জবানবন্দি গ্রহণ করা হবে।

অপরদিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আশফাকুল পুলিশের কাছে ধর্ষণ ও মুঠোফোনে ছবি তোলার কথা স্বীকার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত আশফাকুলকে আজ ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ করা হবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোহাম্মদ শাহ আলম

২০১৯-০৯-২৩ ২৩:৪৭:৪৪

এরা হলো এই সমাজের উচ্ছিষ্ট। এদের যেখানে রাখা হবে সেখানেই দুর্গন্ধ ছড়াবে। অতএব..........

Kazi

২০১৯-০৯-২৩ ২২:০৯:০৭

এই সব আগাছা রেখে কোন লাভ আছে কি।সঙ্গে সঙ্গে সাফ করে ফেললে হয় না।

আপনার মতামত দিন

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত বলেই নৃশংস ঘটনা ঘটছে

যুবলীগের নেতৃত্ব নিয়ে নানা আলোচনা

যুবলীগের দায়িত্ব পেলে ভিসি পদ ছেড়ে দেবো

বিজিবি-বিএসএফ ভুল বোঝাবুঝি আলোচনায় শেষ হবে

আন্ডার ওয়ার্ল্ডের চাঞ্চল্যকর তথ্য সম্রাটের মুখে

শেয়ারবাজার টালমাটাল

ম্যানচেস্টারে বিমানের অফিস নিয়ে প্রশ্ন

পিয়াজের দাম কমবে কবে?

শিশু নির্যাতনকারীর ক্ষমা নেই

জামায়াতকে তালাক দিয়ে রাস্তায় নামুন: বিএনপিকে জাফরুল্লাহ

ঐক্যের ডাক গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে দিতে হবে

বাংলাদেশে পাবজি গেম বন্ধ

ভারতের সব রাজ্যে ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরি হচ্ছে

জমি দখল করাই তাদের কাজ

ফেনী নদীর পানিচুক্তি নিয়ে হাইকোর্টে রিট

নতুন ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে পার্লামেন্টে কঠিন লড়াইয়ের মুখে জনসন