জুয়ার আসর বসিয়ে ক্লাব চালাতে হবে এটা কোথাও উল্লেখ নেই

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৫১
চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ছেলে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভাই শেখ কামালের নাম দিয়ে ক্লাব করবেন। সেখানে জুয়ার আসর বসিয়ে সেই টাকা দিয়ে ক্লাব পরিচালনা করবেন-এসব অন্যায় বরদাশত করা হবে না। সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগরীর ৪০ নং ওয়ার্ডে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকবিরোধী এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এ সময় জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরীকে ইঙ্গিত করে তিনি ক্লাবে জুয়ার আসর বসানোর তীব্র নিন্দা ও ঘৃণা জানান।
মেয়র বলেন, আমার বগলে কোনো গন্ধ নেই। ক্লাব তো আমিও চালাই। আমি ব্রাদার্স ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট। ব্রাদার্স ইউনিয়ন ফুটবল লীগে চ্যামিপয়ন হয়েছে।
ক্রিকেট লীগে চ্যামিপয়ন হয়েছে এবং চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত অনেকগুলো ডিসিপ্লিনে চ্যামিপয়ন হয়েছে। কই আমি তো আমার ব্রাদার্স ইউনিয়নে ক্লাবঘর করিনি। কারণ ক্লাবঘর করলেই নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ড বাড়বে। আমার ক্লাব এই ধরনের ফালতু কাজের সঙ্গে জড়িত নয়।
মেয়র বলেন, ক্রীড়াঙ্গনের নামে ক্লাব করলে সেখানে খেলাধুলার পরিবেশ সৃষ্টি করাই একমাত্র উদ্দেশ্য হওয়া উচিত। কেউ যদি বলে থাকেন ক্লাব চালানোর জন্য জুয়ার আসর প্রয়োজন, আমি এমন বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তিনি বলেন, মানুষের জীবনে বিনোদনের প্রয়োজন আছে। আর বিনোদনের সবচেয়ে শক্তিশালী মাধ্যম হলো ক্রীড়া। ক্রীড়াঙ্গনের মতো এমন পবিত্র একটি অঙ্গনকে পরিচালনা করতে হলে নিজের পকেট থেকে হোক বা প্রয়োজনে শুভাকাঙক্ষীদের থেকে অনুদান নিয়ে হোক যেকোনোভাবে পরিচালনা করা যায়। কিন্তু মদের আসর বসিয়ে, জুয়ার আসর বসিয়ে, ক্যাসিনো ব্যবসা করে সেই টাকা দিয়ে আপনার ক্লাব চালাতে হবে এমন কথা সংবিধানের কোথাও উল্লেখ নেই।
প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতিবিরোধী পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়ে মেয়র বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেটা বলেন, সেটাই করেন। তার আগের সরকার শুধু সুন্দর সুন্দর কথা বলেছেন। কিন্তু সুন্দর সুন্দর কাজ করেননি। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যেভাবে জঙ্গি দমন করা হয়েছে সেভাবে দুর্নীতিবাজদেরও দমন করা হবে। নিজের দলকেও ছাড় দেয়া হবে না। আগে নিজের দলের দুর্নীতিবাজদের দমন করবেন। তারপর অন্য দলের দুর্নীতিবাজদের দমন করবেন। প্রধানমন্ত্রীর এসব কথার প্রতিফলন আপনারা ইতিমধ্যে দেখতে পাচ্ছেন। নিজ দলের অঙ্গ সংগঠনের বড় বড় দুর্নীতিবাজদের কীভাবে ধরা হচ্ছে। কাউকেই ছাড় দেয়া হচ্ছে না। সব জুয়ার আসরেই অভিযান চালানো হচ্ছে। এর নেপথ্যে যত বড় ক্ষমতাবান ব্যক্তিই থাক না কেন তাদের কঠোরভাবে দমন করা হচ্ছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ছেলের ইটের আঘাতে প্রাণ গেলো বাবার

বড়পুকুরিয়ার সাবেক এমডিসহ ৩ কর্মকর্তা জেলে

‘নীতি নৈতিকতা, মূল্যবোধ তলানিতে ঠেকেছে’

কুষ্টিয়ায় কৃষক হত্যা: স্ত্রীসহ ৪ জনের ফাঁসি

এনএসআইয়ের সাবেক মহাপরিচালকের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার শুরুর নির্দেশ

যুদ্ধবিরতির মার্কিন আহ্বান প্রত্যাখ্যান করলেন এরদোগান

বিক্ষোভের মুখে হংকং পার্লামেন্টে বক্তব্য দিতে পারলেন না ক্যারি লাম

দ্বিতীয় দিনের মতো আন্দোলনে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিরা

বিকালে ঐক্যফ্রন্টের জরুরি বৈঠক

ভাল রাঁধেন অভিজিত, খেটেছেন জেল

রাস্তায় সতর্ক হয়ে চলার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

শহীদ আবরার হল!, খুনীদের নামে টয়লেটের লোকেশন

ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কালো তালিকাভুক্ত থাকবে পাকিস্তান

বিহারে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে ডেঙ্গুজ্বর

আওয়ামী লীগ কর্মী হত্যায় যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার

চিদাম্বরমকে জেলখানায় ২ ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ, গ্রেপ্তার