গুঁড়িয়ে দেয়া হলো রেল কলোনির অবৈধ বসতি

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
 রাজধানীর শাজাহানপুর রেলওয়ে কলোনির জায়গা দখল করে অবৈধভাবে গড়ে তোলা বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্লাবসহ হাজারও বসতবাড়ি গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। গতকাল রেলওয়ের দু’টি টিম উচ্ছেদ অভিযানে অংশ নিয়ে এসব অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়। সকাল ১০টার দিকে শুরু হওয়া এ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান কার্যক্রম। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রেলওয়ের জায়গা দখল করে শাজাহানপুরে হাজার হাজার বসতবাড়ি গড়ে তোলা হয়েছে। স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ছত্রচ্ছায়ায় এসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলা হয়। এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন গ্রেপ্তার হওয়া ক্যাসিনো সম্রাট খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া। বস্তির আকারে গড়ে তোলা এসব বাড়ি ভাড়া দিয়ে প্রতি মাসে কোটি টাকার ওপরে ভাড়া তোলা হয়। বছরের পর বছর ধরে রেলওয়ে কলোনির জায়গা দখল করে এসব অবৈধ স্থাপনা করা হলেও কেউ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।
কারণ রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তাও এখান থেকে যে আয় হয় তার ভাগ পান। কলোনি অঞ্চলের অবৈধ স্থাপনা নিয়ন্ত্রণ করতে ‘বাংলদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ’ নামে ক্লাব গড়ে তোলা হয়। এ ক্লাবে বখাটেদেরে আড্ডার পাশাপাশি জুয়ার আসরও বসতো বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। এদিকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের সময় রেলওয়ের টিম বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্লাবে ঢুকে জুয়া খেলার টেবিল এবং কয়েক বান্ডেল তাস পায়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ক্লাবটি বুলডেজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া রেলওয়ে ল্যান্ড অ্যান্ড বিল্ডিংয়ের ডেপুটি কমিশনার মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, ওপর মহলের নির্দেশে আমরা এ উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছি। এখানে কোনো অবৈধ স্থাপনা থাকতে দেয়া হবে না। তিনি বলেন এ উচ্ছেদের পর আবার অবৈধ ভাবে দখলের সুযোগ থাকবে না। কারণ আমরা নিয়মিত মনিটরিং করবো। এখানে কোনো অবৈধ স্থাপনা আমরা থাকতে দেব না। স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আলম বলেন, রেলওয়ের লোকদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে প্রভাবশালীরা এখানে বছরের পর বছর ধরে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলেছে। কিন্তু কেউ কিছু বলেনি। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের যে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা খুবই ভালো উদ্যোগ। তিনি বলেন, এখানে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা কয়েক হাজার বাড়ি আছে। এর কোথাও কোথাও অসামাজিক কাজও চলতো। আবার যে ক্লাব রয়েছে, ওখানে নিয়মিতই জুয়ার আসর বসতো। এর সব কিছুই নিয়ন্ত্রণ করতেন প্রভাবশালী নেতারা।


 


এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৯-০৯-২২ ২৩:০৩:১০

Very good attempt. But monitoring is cumbersome. After few months it get idled. Only the way to protect the property is to fenced it or build boundary walls.

আপনার মতামত দিন

মেনন ও তার স্ত্রীকে পদত্যাগ করতে বললেন আলাল

ব্যাখা দিলেন রাশেদ খান মেনন

কারা ডিআইজি বজলুর রশীদ গ্রেপ্তার

উপাচার্য পদের মর্যাদা রক্ষা করা সকলের দায়িত্ব

মাদকের বিরুদ্ধে শপথ করালেন আলোচিত বক্তা তাহেরী

খালেদা জিয়াকে দেখতে যাবেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

‘কমলেশ হত্যায় দায়ী বিজেপি নেতা’

মেনন সত্য কথা বলেছেন: ড.কামাল

সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব

বৃটেনে ব্রেক্সিট বিরোধী ঐতিহাসিক বিক্ষোভ

ঢাবিতে ছাত্রদলের উপর ছাত্রলীগের হামলা

লোহাগড়ায় বোনের হাতে ভাই খুন

রাশেদ খান মেনন যা বলেছেন (ভিডিও)

হাইকোর্ট বিভাগে ৯ বিচারপতি নিয়োগ

রণক্ষেত্র ভোলা, পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, নিহত ৪, শতাধিক আহত (ভিডিও)

এখন দেশে চলছে ভানুমতির খেল: রিজভী