দেশের জনগণ তো এমন ছিল না, মন্তব্য হাইকোর্টের

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২৭ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:৫৫
রাস্তায় প্রকাশ্যে একজন মানুষকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে মারলো আর জনগণ সেই দৃশ্য দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভিডিও করল, কিন্তু কেউ বাধা দিল না। দেশের জনগণ তো এমন ছিল না।  বরগুনার স্ত্রী সামনে প্রকাশ্যে হত্যার ঘটনাটি সামনে আনলে এমন মন্তব্য করেন হাইকোর্ট। বলেন, আমরা জনগণের বিষয়ে কী আদেশ দেবো?

বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফ নামে এক যুবককে তার স্ত্রীর বাধার মুখে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যার ঘটনায় প্রকাশিত খবর আজ হাইকোর্টে উপস্থাপনের পর বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ জনগণের বিষয়ে এমন মন্তব্য করেন।

দিনদুপুরে স্ত্রী আয়েশা আক্তারের সামনে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা নিয়ে আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল আদালতে বলেন, যতটুকু জেনেছি, এখনও মামলা হয়নি। এ ঘটনার বিচার যদি কোনো কারণে বিলম্ব হয় ও বিচারহীন হয়, তাহলে আরও এমন ঘটনা ঘটার আশঙ্কা থাকে। তবে বিচার হবে আশা করছি।

এ সময় পাশ থেকে অপর এক আইনজীবী আদালতকে জানান, রিফাত শরীফকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে ১২ জনকে আসামি করে নিহত যুবক রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ এ মামলা করেন। মামলার পরপরই চন্দন নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর আগে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল রিফাত শরীফ হত্যার ঘটনায়  দেশের বাংলা ও ইংরেজিসহ বিভিন্ন পত্রিকার প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। তিনি জানান, এমন একটি হত্যার ঘটনা প্রকাশ্যে ঘটলো।
এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ প্রভাব ফেলেছে।

এ সময় প্রকাশ্যে এই যুবককে তার স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মর্মাহত হয়ে জনগণের প্রতি  ক্ষোভ প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। আদালত এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কী পদক্ষেপ (অ্যাকশন) নেয়া হয়েছে, তা আজ দুপুর দু’টার মধ্যে জানাতে বলেন সংশ্লিষ্টদেরকে। বরগুনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারের (এসপি) সঙ্গে কথা বলে সংশ্লিষ্ট কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশারকে এ তথ্য জানাতে বলা হয়েছে।

বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন আদালতের নজরে আনলে বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ মন্তব্যের পাশাপাশি এ আদেশ দেন।

আদালত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাস্তায় প্রকাশ্যে এভাবে কুপিয়ে হত্যা করল, অথচ স্ত্রী ছাড়া তাকে বাঁচাতে কেউ এগিয়ে আসলে না। সবাই পাশে দাঁড়িয়ে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখল আর ভিডিও করল। এটা আমাদের জনগণের ব্যর্থতা। দেশের মানুষ তো এমন ছিল না। সামাজিকতা এখন  কোথায় দাঁড়িয়েছে?

আদালত আরও বলেন, জনগণকে কী বলবো, জনগণের বিষয়ে কী আদেশ দেব? রাজপথে একজন মানুষকে দিনের বেলায় এভাবে কুপিয়ে মারলো আর আশে পাশের মানুষ সবাই তামাশা দেখছে, পাঁচজন লোকও আসল না বাঁধা দিতে। বুঝলাম সন্ত্রাসীরা ভয়ঙ্কর। তার পরেও তার পরেও তো মানুষ এগিয়ে আসতে পারতো।

এ সময় আদালত বলেন, রিফাত শরীফকে তার স্ত্রীর সামনে প্রকাশ্যে রাস্তায় কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় তার আত্মীয়-স্বজন ও দেশবাসীর সঙ্গে আমরাও মর্মাহত।

উল্লেখ্যে, বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে (২২) প্রকাশ্যে তার স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে জখম করে সন্ত্রাসীরা। পরে বিকেল তিনটার দিকে বরিশালের শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mahmud

২০১৯-০৬-২৯ ১৯:৫৮:২৯

দেশের মানুষ ছিলোনা ,এইভাবে প্রকাশ্যে কোপাতো না। কেন এখন এত নৃশংস হলো? কারণ যারা কোপায় তারা জানে যে আমাদের ধরা হলেও জামিন পেতে একটু ও বেগ পেতে হবে না। এইটা কি বিচারালয় জানে ? জনগণ শুধু দর্শক নয়, বিচারপতিগণ ও তো দর্শক ! কারণ একজন সিনহা সাহেব এত বছর এত বড় বড় অপরাধ করা সত্ত্বেও অবশিষ্ট বিচারপতিগণ তাহা নীরবে দাঁড়িয়ে দেখেছে। পরে ঝোপ বুঝে কোপ মেরেছেন। আর যদি সিনহা সাহেব নির্দোষ হয়ে থাকেন তবে তার অবসর নিয়ে যে একটা ক্লাসিকাল ড্রামা বানানো হলো ওই ড্রামা দেখে ও বিচারালয় নীরবে দাঁড়িয়ে থাকলেন। জনগণের উপর ক্ষোভ উগরে নিজেদের সমাজের পতি ভাববেন না। মনে রাখবেন জনগণের টাকায় সবাই বেতন পায়। ক্ষমতায় থাকলে ১০০ মামলার আসামি হলেও সে সকল মামলায় বেকুসুর খালাস বা জামিন পেয়ে যায়। আবার সেই ক্ষমতা থেকে ছিটকে গেলেই টুটকো মামলাতেই জেল খাটে। এই সমস্ত কারবার কি জনগণ করে নাকি বিচারপতিরা ? জনগণের তো জামিন দেওয়ার ক্ষমতা নাই।

Foysal

২০১৯-০৬-২৮ ০৯:২০:৩২

আপনি কোথায় ছিলেন ? মিজানুর রহমান

M Masud Parvez

২০১৯-০৬-২৮ ০৫:০৭:৪৩

জনগণ আগাবে না,মুক্তিযোদ্ধাগন দেশকে অনেক দিয়েছিলেন,আজ সেই মুক্তিযোদ্ধাদের দেখতে হয় আমি রাজাকার প্ল্যাকার্ড বুকে ঝোলান তরুন, যারা এই সব অপকর্ম রোখার জন্য বেতন নিচ্ছেন,তারা কোথায়? বলতে চাচ্ছেন,ঘটনাস্থলের আশেপাশে আইনশৃংখলা বাহিনীর কারও দায়িত্ব ছিল না??

TAWHID

২০১৯-০৬-২৭ ২১:২৯:০৮

বিচার বিভাগের উপর মানুষের আস্থা নেই বলেই মানুষ আর আগের মত রিস্ক নিয়ে কেউ কাউকে সাহায্য করতে এগিয়ে যান! যারা রি কাজ করেছে দেখা যাবে সবাই সরকারী দলের কর্মী!! দেশে সুশাসন নেই, তো জনগন কী করবে, সন্ত্রসীদের হাতে ধারালো অস্ত্র! মাননীয় হাইকোর্টকে সম্মানের সাথে বলছি, আগে সুশাসন ও সুবিচার প্রতিষ্ঠিত করুন...........

Chowdhury

২০১৯-০৬-২৭ ০৬:৫১:৪০

বিচার বিভাগের উপর মানুষের আস্থা নেই বলেই মানুষ আর আগের মত রিস্ক নিয়ে কেউ কাউকে সাহায্য করতে এগিয়ে যান! যারা রি কাজ করেছে দেখা যাবে সবাই সরকারী দলের কর্মী!!

মো: হারুনুর রশিদ

২০১৯-০৬-২৭ ১৪:৪৭:৫৭

দেশে সুশাসন নেই, তো জনগন কী করবে, সন্ত্রসীদের হাতে ধারালো অস্ত্র! মাননীয় হাইকোর্টকে সম্মানের সাথে বলছি, আগে সুশাসন ও সুবিচার প্রতিষ্ঠিত করুন...........

Uddin

২০১৯-০৬-২৭ ১৪:৪৬:২১

Very funny comments by BD Highcourt. They don't feel that there is no justice in BD.

মিজানুর রহমান

২০১৯-০৬-২৭ ০১:৪৩:৪৫

যারা ছেলেটাকে না বাচিয়ে মোবাইলে ভিডিও করেছে ওরা মানুষ না । ওদেরকে আইনের আওতায় আানার ব্যাবস্থা করা উচি।

নুরুল ইসলাম

২০১৯-০৬-২৭ ০১:৪০:১৯

সমাজের অবক্ষয় একদিনে হয়নি যখন লগি-বৈঠা দিয়ে রাস্তায় পিটিয়ে হত্যা করে লাশের উপর নৃত্য করা হয়েছিল তখন যদি মাননীয় কোর্ট কোন রকম অ্যাকশনে যেতো তাহলে হয়তো আজকে এই অবস্থা আমাদের কে দেখতে হত না। যে যেভাবে সুযোগ পাচ্ছে সেভাবে অন্যায় করে যাচ্ছে আর সে যদি কোনো বিশেষ দলের সমর্থক হয় তাহলে তো কোন কথাই নেই বিচার হওয়া সে তো দূরের ব্যাপার। পুলিশ বিভিন্ন সময় অথবা বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মানুষকে দিনে অথবা রাতের আঁধারে নিয়ে গুম করে ফেলা হয়েছে অথবা মেরে ফেলা হয়েছে সে জায়গায় যখন বিচার হয় না তখন ওই স্টাইলে এই জিনিসটাও করা হয়েছে, একটা হল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হত্যা করেছে আর একটা হল সন্ত্রাসীরা হত্যা করেছে দুইটার মধ্যে এতোটুকুই ফারাক। মাননীয় আদালত সাগর-রুনির হত্যার বিচার এখন তো শুরুই করা গেল না। বিশ্বজিতের হত্যার বিচার কেমন হয়েছে আমরা সবাই জানি। কয়েকজন খুনের আসামি ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের কে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। লক্ষ্মীপুরে নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার আসামিদের কি অবস্থা তাও আমরা জানি। সুতরাং সবিনয়ে মাননীয় আদালত কে বলতে চায় সমাজের অবক্ষয় টা একদিনে হয়নি। দুদক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নির্বাচন কমিশন সবাই মিলে বিরোধী দলীয় লোকদের কে যেভাবে হ্যাঁ নাস্তা করা হয়েছে মায়ের দূর করা হয়েছে হত্যা করা হয়েছে তারপর অবশ্যই এ ধরনের হত্যাকাণ্ড ঘটা স্বাভাবিক।

নেছার আহমেদ

২০১৯-০৬-২৭ ১৪:৩৮:১১

" আদালত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাস্তায় প্রকাশ্যে এভাবে কুপিয়ে হত্যা করল, অথচ স্ত্রী ছাড়া তাকে বাঁচাতে কেউ এগিয়ে আসলে না। সবাই পাশে দাঁড়িয়ে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখল আর ভিডিও করল। এটা আমাদের জনগণের ব্যর্থতা। দেশের মানুষ তো এমন ছিল না। সামাজিকতা এখন কোথায় দাঁড়িয়েছে? " সত্যিইতো দেশের মানুষ কখনও এমন ছিলোনা। দেশের মানুষ কেমন জানি ফার্মের মূর্গীর ন্যায় আচরন করছে। ফার্মের মূর্গীর একটাই কাজ খাওয়া আর মল ত্যাগ করা, দেশের মানুষ সেরকমই হয়ে গেছে। কিন্তু দেশের মানুষকে এভাবে ফার্মের মধ্যে আটকিয়ে তাদের ফার্মের মূরগী বানালো কে ? আমরা সবই দেখি, আমরা সবই বুঝি, আমরা সবই মানি, তারপরেও ফার্মের মুরগী হওয়ায় কোন প্রশ্নই করতে পারিনা। না আমরা পারি, না আদালত পারে !! আর কত ???????????????????????????????????????????????

Shobuj Chowdhury

২০১৯-০৬-২৭ ১৪:২৮:১৭

Every action has an equal and opposite reaction. When peoples rights are taken away, relentless efforts are made to make country a police state and judiciary join hands with police and admin, people lost all hopes. No wonder they become silent.

আপনার মতামত দিন

মোবাইল কোর্টে বিশেষ পুলিশের প্রয়োজন নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাবির উপাচার্য প্যানেল নির্বাচন ৩১ জুলাই

এবার গ্রেপ্তার রিশান ফরাজী

প্রতি ইঞ্চি জমি থেকে অনুপ্রবেশকারীদের খুঁজে বের করব: অমিত শাহ

যমুনায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত, সিরাজগঞ্জে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত

আসামে বন্যায় মৃত ২৭, বিপদসীমার ওপরে ব্রহ্মপুত্র ও শাখা নদী

সিরাজগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট শুরু

মাত্র তিন মাস বাড়লো তসলিমা নাসরিনের ভিসার মেয়াদ

৮ দিন ধরে ঘরের চালে নুর বানু (ভিডিও)

কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ পুনর্বিবেচনা করতে পাকিস্তানকে আইসিসির নির্দেশ

বন্যার পানি ভাসিয়ে নিলো নবদম্পতির সংসার (ভিডিও)

অভিবাসী ছিলেন ট্রাম্পের দাদা, ঠাঁই পাননি নিজদেশে

বাবার পর এবার মিললো ছেলের লাশ

প্রবল স্রোতে ফেরি চলাচল ব্যাহত পাটুরিয়ায় আটকে আছে কয়েকশ’ যানবাহন

‘আমার নামে অশ্লীলতার বদনাম আনা হয়েছিল’

ফিলিস্তিনে ইসরাইলী দখলদারিত্বের নিন্দা ঢাকার