বাংলাদেশ-ভারত নতুন পানিপথে আগ্রহী ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১২ জুন ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৫২
ত্রিপুরার গোমতী ও বাংলাদেশের মেঘনা নদীকে সংযুক্ত করে একটি নতুন পানিপথ বাস্তবায়নে খুবই আগ্রহী ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। এর ফলে ওই রাজ্যের পরিবহন বা পণ্য স্থানান্তরে আমুল পরিবর্তন আসবে। ত্রিপুরার পরিবহন বিভাগের সচিব এল ডারলং বুধবার মিডিয়ার কাছে এ কথা বলেছেন।

প্রস্তাবিত ওই পানিপথ হবে ১৫ কিলোমিটার। বাংলাদেশের আশুগঞ্জ বন্দরের সঙ্গে যুক্ত হবে তা। মাঠ পর্যায়ে প্রস্তাবিত পানিপথের বাস্তবতা দেখতে লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে ত্রিপুরার সিপাহিশালা জেলার শ্রীমান্তপুর এলাকা পরিদর্শন করেছে ভারতের শিপিং বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একটি টেকনিক্যাল কমিটি। প্রস্তাবিত এই পানিপথ প্রকল্পে কর্মকাণ্ড পরিচালানার জন্য শ্রীমান্তপুর স্থল কাস্টমস স্টেশনে একটি জেটি নির্মাণ করতে চায় ত্রিপুরা সরকার। মঙ্গলবার পরিকল্পনা বিভাগের এক বৈঠকে বিপ্লব দেবকে এই পানিপথ প্রকল্প বিষয়ে যৌথ টেকনিক্যাল কমিটির রিপোর্ট সম্পর্কে ব্রিফ করা হয়েছে। আগরতলায় পরিবহন বিষয়ক সচিব এল ডারলং এ কথা বলেছেন সাংবাদিকদের।


টেকনিক্যাল কমিটির রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রস্তাবিত পানিপথ কর্মক্ষম করতে হলে ১৩ কিলোমিটারে ড্রেজিং করতে হবে। ১৫ কিলোমিটার এই পানিপথের মধ্যে এই ১৩ কিলোমিটার পড়েছে বাংলাদেশ অংশে। বাকি অংশ ভারতের ভিতরে। এই পানিপথ কার্যকর হলে এর মধ্য দিয়ে ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকৃতির নৌযান চলাচল করতে পারবে।

এল ডারলং বলেছেন, ১২ ও ১৩ই মার্চ হাইড্রোগ্রাফিক অনুসন্ধান চালানো হয়। তার ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে জয়েন্ট টেকনিক্যাল কমিটির রিপোর্ট। তিনি আরো বলেছেন, এই উচ্চাকাঙ্খী প্রকল্প সামনে এগিয়ে নেয়ার জন্য ভারতের আভ্যন্তরীণ নৌপথ বিষয়ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করতে রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী। তিনি আরও বলেছেন, প্রকল্পটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শেষ করার আহ্বান নিয়ে তিনি ভারতের আভ্যন্তরীণ নৌচলাচল বিষয়ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন। তার ভাষায়, ত্রিপুরার যেহেতু সীমিত সম্পদ রয়েছে, তাই আমার মতামত হলো, এই ড্রেজিং কাজ সম্পন্ন করতে খরচের যোগান দেবে কেন্দ্রীয় সরকার।

এরই মধ্যে ত্রিপুরার পালাটানা বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের সরঞ্জাম পরিবহনে আশুগঞ্জ বন্দরটি ব্যবহার করেছে ভারত। পালাটানা থেকে উৎপাদিত বিদ্যুত আসছে বাংলাদেশে। এ ছাড়া কয়েক বছর আগে থেকেই ভারতের মূল ভূখণ্ড থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ত্রিপুরায় সরবরাহ করা হচ্ছে এই বন্দকে ব্যবহার করে। এখন পশ্চিমবঙ্গের হলদিয়া বন্দর থেকে জাহাজ ও স্টিমার ছেড়ে চলে আসে বাংলাদেশের দাউদকান্দিতে। এই দাউদকান্দি ত্রিপুরার সিপাহিসালা জেলার সাবডিভিশন সোনামুড়া থেকে মাত্র ৮০ কিলোমিটার দূরে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

৮৮ পাউন্ডের লুলুলেমন, নির্মাতারা নির্যাতিত

সম্রাটের মুখে কুশীলবদের নাম

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে ফিফা প্রেসিডেন্ট

ফরিদপুরে মানবজমিন উধাও

সীমান্তে গোলাগুলি বিএসএফ সদস্যের নিহতের খবর ভারতীয় মিডিয়ায়

৩৬০০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবে সৌদি কোম্পানি

গ্রামীণফোন-রবিতে প্রশাসক নিয়োগে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন

বালিশকাণ্ডের তদন্তে দুদক

ব্রেক্সিট নিয়ে বৃটেন ইইউ সমঝোতা

মুসা বিন শমসেরের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়েও নিরাপত্তাহীনতায়

ভুলে আসামি, ১৮ বছর পর খালাস পেলেন নাটোরের বাবলু শেখ

গ্রামীণফোনের কাছ থেকে ১২৫৮০ কোটি টাকা আদায়ের ওপর হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

‘ফিরোজের কাছে ফিরে আসবো’

শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী বলেই আবরার হত্যার পর দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে

পদযাত্রায় বাধা, আমরণ অনশনে নন-এমপিও শিক্ষকরা