এমপিদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪৫
একাদশ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের (এমপি) পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট আবেদন সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ নিয়ে দুই দফা রিট আবেদন খারিজ হলো। সোমবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। দুটি যুক্তিতে আদালত রিট খারিজ করেন। একটি হলো যেদিন সংসদের প্রথম অধিবেশন বসবে সেদিন থেকে সংসদের কার্যক্রম শুরু হবে। ২৮শে জানুয়ারি পর্যন্ত ছিল দশম সংসদের মেয়াদ। যেহেতু ৩০শে জানুয়ারি একাদশ সংসদের কার্যক্রম শুরু সেহেতু ওইদিন থেকে একাদশের সংসদ সদস্যরা কার্যভার নিয়েছেন বলে  বিবেচিত হবে। দ্বিতীয়টি হলো, গত ৩রা জানুয়ারি সংসদ সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। কারণ তাদের শপথের পরই মন্ত্রিসভা গঠন করতে হতো। শপথের পর রাষ্ট্রপতি মন্ত্রিসভা গঠনের আহ্বান জানিয়েছিলেন। এতে আইনের ব্যত্যয় ঘটেনি।

রিট আবেদনের আইনজীবী ব্যারিস্টার সাকিব মাহবুব বলেছেন, হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যাব। পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হলে স্পষ্ট হবে কেন আবেদনটি খারিজ হলো।

রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেছুর রহমান বলেন, রিট আবেদনটি খারিজ করেছেন আদালত। এতে প্রমাণিত হলো, একাদশ জাতীয় সংসদের এমপিদের শপথ গ্রহণে আইনের ব্যত্যয় হয়নি। তারা সংবিধান সম্মতভাবেই শপথ নিয়েছেন। তাদের নেয়া শপথ বৈধ।

গত ২১শে জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. তাহেরুল ইসলাম (তৌহিদ) এ রিট আবেদনটি দায়ের করেন। রিটে একাদশ জাতীয় সংসদের এমপিদের পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা হয়। গত ৬ই ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের একই বেঞ্চ রিট আবেদনের ওপর শুনানি শেষে ১৮ই ফেব্রুয়ারি (গতকাল) দিন ধার্য করেছিলেন।

ওইদিন আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও সাকিব মাহবুব। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেছুর রহমান।

গত ৮ই জানুয়ারি একাদশ সংসদের এমপিদের শপথ অবৈধ ও অসাংবিধানিক দাবি করে জাতীয় সংসদের স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছিল। নোটিশের জবাব না পেয়ে ১৫ই জানুয়ারি আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ রিট আবেদন করেন। ওই রিট আবেদন ১৭ই জানুয়ারি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ। আদালত বলেন, রিট আবেদনকারী যথাযথ প্রক্রিয়া রিট আবেদনটি করেন নি। এরপর নতুন আঙ্গিকে রিট আবেদনটি দায়ের করা হয়। রিটে বলা হয়, দশম সংসদ ভেঙে না দিয়ে একাদশ সংসদের সংসদ সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। ২৮শে জানুয়ারি পর্যন্ত দশম সংসদের মেয়াদ ছিল। মেয়াদ অবসানের আগেই ৩রা জানুয়ারি একাদশ সংসদের এমপিরা শপথ নিয়েছেন। এতে সংবিধান লঙ্ঘন হয়েছে। তাদের শপথের মধ্য দিয়ে একইসঙ্গে দুটি সংসদ বহাল ছিল।

গত ৩০শে ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হয়। নির্বাচনে ভূমিধস জয় পায় আওয়ামী লীগ। ১লা জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন বিজয়ী এমপিদের প্রজ্ঞাপন জারি করেন। ৩রা জানুয়ারি শপথ নেন এমপিরা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মোদিকে হাসিনার ফোন

অসন্তোষ ‘কমেছে’ ২০ দলে

যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ইউএনও’র মামলা

মমতার দুর্গেও বিজেপির হানা

ফল মেনে নিয়ে পদত্যাগের ইঙ্গিত রাহুলের

রাষ্ট্র মেরামতে সুজনের ১৮ প্রস্তাব

আতঙ্কের জনপদ ‘শাহপরাণ থানা’

আঞ্জুমানের ভবন নির্মাণে সহায়তা দিতে ব্যাংকগুলোর প্রতি সালমান এফ রহমানের আহ্বান

‘হাইকোর্টকে হাইকোর্ট দেখাচ্ছেন’

জমে উঠেছে ঈদ বাজার

মোদিকে বিএনপি’র অভিনন্দন

রাজশাহী বিমানবন্দরে পিস্তল ও গুলি জব্দ

গাড়ি পাচ্ছেন সংসদের উপ-সচিবরা: বাজেট ৬ কোটি টাকা

গোপন ভোটাভুটিতে নির্বাচিত হবেন শীর্ষ ৫ নেতা

কর্মকর্তাদের সতর্ক করে সব মিশন প্রধানকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

নেহরু ও ইন্দিরার পর পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফেরা একমাত্র প্রধানমন্ত্রী মোদি