নিষেধাজ্ঞা ভেঙে গাজীপুরে নওফেল

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে | ২৫ জুন ২০১৮, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৫
নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান  চৌধুরী নওফেল। দলীয় প্রার্থীর পক্ষে সংবাদ সম্মেলন চলাকালে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়েন। সাংবাদিকরা নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি তাকে অবহিত করলে তিনি বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। পরে প্রজ্ঞাপন দেখানোর পর তিনি সংবাদ সম্মেলন ছেড়ে চলে যান। যাওয়ার সময় তিনি রোববারই গাজীপুর ছেড়ে যাওয়ার কথা জানান।

এদিকে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা লঙ্ঘন করে গাজীপুরে নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেয়ার অভিযোগ ওঠেছে আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। বিএনপির নেতৃবৃন্দের অভিযোগ, খুলনা সিটি করপোরেশনের নব নির্বাচিত মেয়র ও খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক নির্বাচনী বিধি ভেঙে  রোববার সকালে নগরের সালনায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের পাশে একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন। ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম সাইনবোর্ড এলাকার একটি কারখানায় সমাবেশে প্রার্থীর পক্ষে বক্তব্য রেখে ভোট চান।
এর আগে, শনিবার রাত ১২টা থেকে গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকা থেকে বহিরাগত ব্যক্তিদের চলে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়ে ২২শে জুন প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন। ২৬শে জুন ভোটের দিন পর্যন্ত ওই এলাকায় বহিরাগত ব্যক্তিদের চলাফেরায় এই বিধিনিষেধ বলবৎ থাকবে।

দুপুরে মহিবুল হাসান সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় শুরু করলে গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকার বাসিন্দা বা ভোটার না হওয়া সত্ত্বেও সেখানে অবস্থানের বিষয়ে সাংবাদিকরা তার কাছে জানতে চান- উত্তরে নওফেল বলেন, এ ধরনের প্রজ্ঞাপনের বিষয়ে তার জানা নেই। আজ থেকেই যে আসা যাবে না, সেটা তিনি জানতেন না। কাল (আজ) সোমবার থেকে প্রচার-প্রচারণা বন্ধ থাকবে, এটা তিনি জানতেন।

কিছুক্ষণ পরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ব্রিফিং করেন। নগর উন্নয়নের স্বার্থে তিনি সকল শ্রেণি- পেশার ও ভোটারদের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, আমাকে ভোট দিন। আমি বাসযোগ্য নগর উপহার দেব। গ্রিন ও ক্লিন সিটি গড়ে তুলবো। এই ব্রিফিংয়ে তালুকদার খালেক ও অন্যদের আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়টি খেয়াল করিনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, আমি সর্বক্ষণ নির্বাচনী প্রচারে ব্যস্ত ছিলাম। আমি জানতামও না এই প্রজ্ঞাপনের ব্যাপারে। এই আইনের আর কোনো লঙ্ঘন ঘটবে না। বহিরাগতদের আসার বিরুদ্ধে আমি ছিলাম সবচেয়ে সজাগ। এছাড়া যারা পোশাক কারখানার মালিক তাদের তো গাজীপুরেই শিল্প-কারখানা রয়েছে। তাদের কারখানায় তারা আসবেন এটাই স্বাভাবিক। ওনারা তো আর বহিরাগত নন। কেউ আমাদের অবহিত করেনি। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের বাসার নিচে প্রেস ব্রিফিং শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি ও আদালতের আদেশে স্থগিত থাকা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। প্যান্ডেলের পাশেই ছিলেন শ্রমিক লীগ নেতা রায় রমেশ চন্দ্র। পরে নির্দেশনার বিষয়টি আলোচিত হতে থাকলে সেখান থেকে দ্রুত চলে যান তারা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

mohammadjashimuddin

২০১৮-০৬-২৫ ২২:৩৪:২২

নির্বাচন কেমন হবে এটা নেতার ভুমিকাই যথেষ্ট নয় কি?

মোম্তাফিজুর রহমান

২০১৮-০৬-২৫ ১১:৩৫:২২

এগুলান কেন আওয়ামীলীগের মত ঐতিহ্যবাহী দলের গুরুত্বপুর্ণ পদে দায়িত্ব পায় বুঝিনা।

আপনার মতামত দিন

কুষ্টিয়া-১ আসনে বিএনপি দলীয় প্রার্থী রেজা আহমেদ বাচ্চু কারাগারে

সিইসির বক্তব্য সঠিক : কাদের

সাহস থাকলে আমাকে গ্রেপ্তার করুন: ড. কামাল

ঢাকা-১৫ আসনে আওয়ামী লীগ অফিস ভাঙচুরের ঘটনায় ধানের শীষ প্রার্থীর নিন্দা

১৪ বছর পর আবার স্বামীকে বিয়ে করলেন নাদিয়া হোসেন

ভোটের দিনে ইন্টারনেটের গতি সীমিত রাখার পরিকল্পনা ইসির

মেহেরপুরে বিএনপির নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর

হিরো আলম পর্যন্ত ইসিকে হাইকোর্ট দেখায় : ইসি সচিব

লিঙ্গগত ফারাক বিশ্বে সবচেয়ে কম আইসল্যান্ডে, দক্ষিণ এশিয়ায় শীর্ষে বাংলাদেশ

গাংনীতে বিএনপি-জামায়াতের ১৯ নেতাকর্মী আটক

হাসপাতালে ভর্তি লতিফ সিদ্দিকী

৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি

সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগসাজশ: মিয়ানমারে শতাধিক একাউন্ট মুছে দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ

আওয়ামী লীগ ও নির্বাচন কমিশন ভুয়া

জনগণের আস্থার জায়গা যেন ব্যাহত না হয় : সিইসি

হঠাৎ প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন মনমোহন সিং!