‘পাকিস্তানে গণতন্ত্র নয়, চলছে জঘন্য স্বৈরতন্ত্র’

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৪ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার
পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতির সামপ্রতিক কার্যক্রম এমন ইঙ্গিত দেয় যে, পাকিস্তানজুড়ে সামরিক শাসনের চেয়েও জঘন্যতর শাসনব্যবস্থা জারি করা হয়েছে। সোমবার এমন মন্তব্য করেছেন দেশটির অভিশংসিত সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। রাজধানী ইসলামাবাদে জবাবদিহিতা আদালতের ভেতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি দাবি করেন, সেদেশে যা চলছে তা গণতন্ত্র নয়। তা হচ্ছে প্রধান বিচারপতি সাকিব নিসারের অধীনে জঘন্যতম স্বৈরতন্ত্র। এ খবর দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালী পত্রিকা দ্য ডন।

খবরে বলা হয়, রোববার লন্ডন থেকে দেশে ফিরেছেন নওয়াজ শরীফ। সেখানে তার ক্যানসার আক্রান্ত অসুস্থ স্ত্রী, কুলসুম নওয়াজকে দেখতে গিয়েছিলেন তিনি। তিনি বলেন, দেশে যা চলছে তা কোনোভাবে বিচার বিভাগীয় সামরিক শাসনের চেয়ে কম নয়। আদালতের সামপ্রতিক রায়গুলোকে অযৌক্তিক বলে সমালোচনা করে শরীফ বলেন, পাকিস্তানের ২২ কোটি মানুষকে এভাবে নীরব করে দেয়া তার কাছে অগ্রহণযোগ্য।
তিনি বলেন, আজকে আমরা যেসব নিষেধাজ্ঞা দেখছি সেসব নিষেধাজ্ঞা আমরা সামরিক শাসনের আমলেও দেখেনি। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, জবাবদিহিতা আদালতে চলমান মামলায় তাকে দুর্নীতিগ্রস্ত প্রমাণ করতে জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট বেঞ্চের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি আরো দাবি করেন, পাঁচ বিচারপতিকে সফল করে তোলার জন্যই এমন চেষ্টা চালানো হচ্ছে। উল্লেখ্য, এই বেঞ্চই তাকে পানামা পেপারস মামলায় অযোগ্য ঘোষণা করেছে। এরপর পুনরায় প্রধান বিচারপতির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, বিচারপতি নিসার নিয়মিতভাবে হাসপাতাল পরিদর্শন করেন, সবজির মূল্য নিয়ে কথা বলেন। কিন্তু তার উচিত, একজন নিপীড়িত ব্যক্তির বাড়িতেও যাওয়া। ২০ বছরেও যে ব্যক্তির মামলার নিষপত্তি ঘটেনি। প্রধান বিচারপতিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীকে তলব করে সরকারকে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখা আপনার দায়িত্ব নয়। সুপ্রিম কোর্ট, তাদের ২০১৮ সালের এজেন্ডা অনুসারে, মানবাধিকার ইস্যুর দিকেই বেশি মনোনিবেশ করেছে। বিশেষ করে জনগণের গুণগত মানসমপন্ন শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার দিকে নজর দিয়েছে। তবে আদালতটির এরকম কার্যক্রমকে অনেকে সীমা অতিক্রম করা হিসেবেও দেখছেন। অনেকটা সাবেক প্রধান বিচারপতি ইফতেখার চৌধুরীর সময়ের মতন।                 







এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গাইবান্ধায় বাসচাপায় নিহত ২

অস্ত্রের মুখে কিশোরীকে ধর্ষণ, পৌর কাউন্সিলর গ্রেপ্তার

সিরাজগঞ্জে জাতীয় পাটকলে আগুন

অস্ত্র প্রতিযোগিতায় যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীন

যৌন দাসত্ব থেকে দুই কোরিয়ান নারীকে উদ্ধারের কাহিনী

মসজিদ-উল নববীর ইমাম কারাগারে ‘মারা গেছেন’

ওরা কি মানুষ?

জনগণের আস্থার মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে

ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে ভোট ২৮শে ফেব্রুয়ারি

এমন মৃত্যু আর কত?

এক কিংবদন্তির প্রস্থান

ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে বিএনপির ১০ কমিটি

স্পাইসগার্ল টি-শার্ট এবং বাংলাদেশের গার্মেন্ট খাত

ইভিএমের কারচুপি জেনে ফেলায় খুন হন বিজেপি নেতা!

মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহালের দাবিতে শাহবাগে ফের অবরোধ

ইজতেমা নিয়ে আদালতে আসা লজ্জাকর